আনোয়ারায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে সমর্থক নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধেও কঠোর হচ্ছে আওয়ামী লীগ

আনোয়ারার ১০ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) মধ্যে ৪ ইউপিতে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি ৬ ইউপিতে নৌকার প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন আওয়ামী লীগেরই ৬ বিদ্রোহী প্রার্থী। এসব বিদ্রোহী প্রার্থীর পাশাপাশি তাদের সমর্থক দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধেও আসছে কঠোর সিদ্ধান্ত।

প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় বিনা ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বৈরাগ ইউনিয়নে নোয়াব আলী, বটতলী ইউনিয়নে অধ্যাপক এমএ মান্নান চৌধুরী, বারখাইন ইউনিয়নে হাসনাইন জলিল শাকিল এবং চাতরী ইউনিয়নে আফতাব উদ্দিন চৌধুরী সোহেল।

আরও পড়ুন: চকরিয়ায় এক ইউনিয়ন ছাড়া লড়াই হবে সবখানে—কঠোর বার্তা প্রশাসনের

বাকি ৬ ইউপিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর প্রতিদ্বন্ধী হয়ে দাঁড়িয়েছেন আওয়ামী লীগেরই ৬ জন। এছাড়া ২ স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং ইসলামী আন্দোলনের ১ প্রার্থীও রয়েছেন।

এদিকে গত সোমবার (২০ ডিসেম্বর) প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই শুরু হয়ে গেছে প্রার্থীদের নির্বাচনি প্রচারণা। এসব ইউনিয়নে আগামী ৫ জানুয়ারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

জানা গেছে, ২ নম্বর বারশত ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এমএ কাইয়ুম শাহ’র প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুল হক।

৩ নম্বর রায়পুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান জানে আলমের প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে সভাপতি আমিন শরীফ ও আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল কাদের।

৫ নম্বর বরুমচড়া ইউনিয়নে বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুল ইসলাম চৌধুরীর প্রতিদ্বন্ধী বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শাহাদাত হোসেন চৌধুরী ও সাবেক আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল বশর।

৭ নম্বর আনোয়ারা সদর ইউনিয়নে অসীম কুমার দেবের প্রতিদ্বন্ধী বিদ্রোহী প্রার্থী দিদারুল ইসলাম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম।

৯ নম্বর পরৈকোড়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আশরাফ চৌধুরীর প্রতিদ্বন্ধী বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা নাজিম উদ্দিন, স্বতন্ত্র হাসান জিয়াউল ইসলাম এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আবদুল হক।

আরও পড়ুন: কঠোর হচ্ছে আ.লীগ—সিআরবির হাসপাতালবিরোধী ‘নেতারা’ দলীয় নজরদারিতে

১০ নম্বর হাইলধর ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা মো. সোলেমান ও আবু তাহের।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আনোয়ারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ মালেক আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, যারা আওয়ামী লীগের প্রাথীদের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করেছেন তাদের দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। তাছাড়া বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে যেসব নেতাকর্মী কাজ করছেন তাদের বিষয়েও সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে শিগগির।

ইমরান/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm