নেতার ছায়াসঙ্গীও ‘ইয়াবা বাণিজ্যে’, ধরার পর সুর পাল্টালেন!

সাড়ে ৩ কোটি টাকার ইয়াবাসহ ধরল র‌্যাব

ওয়াজ উদ্দিন। ছাত্রলীগ নেতা পরিচয়ে দেন দীর্ঘদিন ধরে। কিন্তু তিনি মাদক বাণিজ্যের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। চট্টগ্রাম কলেজের এক নেতার ‘মায়ায়’ জড়িয়ে ছিলেন বহু সময়। কলেজ রাজনীতিতে মিছিলেও সরব ছিলেন। কিন্তু করোনাকালে নাকি ‘সম্পর্কটা’ আর দীর্ঘ হয়নি, জানালেন সেই নেতা।

চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিকের অনুসারী পরিচয় দেন ওয়াজ। একাধিক ছবিতে এর সত্যতাও মিলেছে আলোকিত চট্টগ্রামের অনুসন্ধানে। তবে সুভাষ মল্লিক তা অস্বীকার করেছেন এই প্রতিবেদকের কাছে। করোনাকালে গত দুবছরে ওয়াজের মুখও দেখেননি বলে জানান তিনি। আবার এই সুভাষ মল্লিক পরিচিত চকবাজারের কথিত নেতা ও সন্ত্রাসী নূর মোস্তফা টিনুর অনুসারী হিসেবে।

অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, ওয়াজ উদ্দিন কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক এইচ এম শওকতের অনুসারী। স্থানীয় লোকজন শওকতের ছায়াসঙ্গী হিসেবেই জানেন ওয়াজকে। এফবিতে অসংখ্য ছবিও রয়েছে তাঁদের।

এদিকে ওয়াজ ইয়াবা নিয়ে ধরা পড়ার সুর পাল্টান শওকত। তিনি আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ওয়াজ উদ্দিনকে আমি চিনি। তবে আমার ঘনিষ্ঠ কেউ না। এরমধ্যে তার সঙ্গে দেখা সাক্ষাতও হয়নি।

ওয়াজের সঙ্গে একাধিক ছবির বিষয়ে তিনি বলেন, নেতা হিসেবে আমার সঙ্গে অনেকেই ছবি তুলতে পারেন

জানা যায়, সাড়ে তিন কোটি টাকার ইয়াবা নিয়ে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়ার পড়েন ওয়াজ উদ্দিন। তাঁর সঙ্গে আরও একজনকেও আটক করে র‌্যাব।

ওয়াজ উদ্দিন কক্সবাজারের পেকুয়ার পূর্ব উজানটিয়ার আবুল কালামের ছেলে। আটক হওয়া আরেক ইয়াবা ব্যবসায়ীর নাম রমিজ উদ্দিন। তাঁর বাড়িও চকরিয়ার বদরখালী এলাকায়। তিনি আবু তাহেরের ছেলে বলে জানায় র‌্যাব।

ছাত্রলীগ নেতা পরিচয়ে ওয়াজ উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁর সঙ্গে আর কারা কারা জড়িত এনিয়েও অনুসন্ধান চালানো হবে— এমন তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাবের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক এইচএম শওকত আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আমি জনপ্রিয় একজন নেতা। আমার সাথে কতজন ছবি তোলেন। আমি তাকে চিনি কিন্তু ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক নেই। তবে আমি তার মায়ের জানাজায় উপস্থিত হয়েছিলাম।

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন সম্পাদক চট্টগ্রাম কলেজের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, লকডাউনের কারণে ওর সাথে আমার দুই বছর ধরে যোগাযোগ নেই। এই সময়ে সে কী করল তা আমি জানি না। এ বিষয়ে আমার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

তিনি বলেন, আমারও পারিবারিক ও সামাজিক জীবন আছে। আমাকে অহেতুক এসব বিষয় না জড়ালে ভালো হয়।

এদিকে কথিত ছাত্রলীগ নেতা ওয়াজ ইয়াবাসহ ধরা পড়ার পর ছাত্রলীগের ওই দুই নেতা সম্পর্কের বিষয়টি অস্বীকার করলেও একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক রয়েছে তাদের।

ডিসি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm