সেই বিশাল জাহাজ কাটা শুরু, পূর্ণরূপে ফেরার প্রতীক্ষায় পারকি

আনোয়ারার পারকি সৈকতে আটকে পড়া সেই বিশাল ‘ক্রিস্টাল গোল্ড’ জাহাজ কাটার কাজ আবারও শুরু হয়েছে। জাহাজটি কাটতে সময় লাগবে প্রায় তিন মাস।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) সকাল থেকে পুনরায় কাজ শুরু করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজ।

এর আগে মনিটরিং কমিটিকে না জানিয়ে গত শনিবার (১১ ডিসেম্বর) দুপুর থেকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জাহাজ কাটা শুরু করে। তবে পরদিন রোরবার (১২ ডিসেম্বর) জাহাজ কাটা বন্ধ করে দেন মনিটরিং কমিটির সভাপতি আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও শেখ জোবায়ের।

আরও পড়ুন: পারকি সৈকতে আটকে পড়া ‘ক্রিস্টাল গোল্ড’ জাহাজ কাটা আবার বন্ধ

এ বিষয়ে জাহাজের মালিক মেসার্স ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজের পরিচালক মো. আমজাদ হোসেন আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) থেকে জাহাজটি কাটার কাজ আবারও শুরু করা হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের শর্ত মেনে সবধরনের প্রস্তুতি ও নিরাপত্তা নিয়ে কাজ চলছে।

তিনি আরও বলেন, পারকি সৈকতে আটকে থাকা ১৯২ মিটার দৈর্ঘ্যের প্রায় ৪০ হাজার মেট্রিক টন ধারণক্ষমতার জাহাজ ‘ক্রিস্টাল গোল্ড’ কাটতে সময় লাগবে প্রায় তিন মাস।

আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ জোবায়ের আহমেদ আলোকিত চট্টগ্রাম বলেন, মনিটরিং কমিটির সভার সিদ্ধান্তের আলোকে সব শর্ত মেনে এবং নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করে জাহাজ কাটার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আজ (শনিবার) সকালে মনিটরিং টিম সৈকত এলাকা পরিদর্শন করেছে।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ৩০ মে ঘূর্ণিঝড় মোরার তাণ্ডবে বন্দরের বহির্নোঙর থেকে জাহাজটি সরে গিয়ে পারকি সমুদ্রসৈকতের চরে আটকা পড়ে। জাহাজের মালিক ছিল ক্রিস্টাল গ্রুপ। কিন্তু ব্যাংক ঋণ এবং নাবিকদের বেতন জটিলতায় জাহাজটি ১১ কোটি টাকায় নিলামে কিনে নেয় ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজ।

এরপর ২০১৯ সালের ৬ জানুয়ারি সৈকতে অনুমতি ছাড়া মেয়াদোত্তীর্ণ জাহাজটি কাটার অভিযোগে ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজকে ২ কোটি টাকা জরিমানা করে পরিবেশ অধিদফতর। জরিমানা পরিশোধ সাপেক্ষে ৩২টি শর্ত মেনে জাহাজ কাটার অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু ফোর স্টার এন্টারপ্রাইজ উচ্চ আদালতে আপিল করে। উচ্চ আদালত আবেদনটি খারিজ করে আদেশ দেন।

শনিবার বিকালে সরেজমিন দেখা গেছে, ‘ক্রিস্টাল গোল্ড’ জাহাজটির আশপাশে নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরি করে জাহাজটি কাটা হচ্ছে। জাহাজটি দেখতে ভিড় করছেন ঘুরতে আসা পর্যটকরা।

আরও পড়ুন: আবারও বিলাসবহুল জাহাজে যাওয়া যাবে সেন্টমার্টিন

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে জাহাজটি চরে আটকে থাকায় মনোমুগ্ধকর পারকির পর্যটন স্পটগুলো এখন ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। জাহাজটি কাটার পরেই পূর্ণরূপে ফিরে আসতে পারে এমনটাই প্রত্যাশা সৈকতে ঘুরতে আসা পর্যটকদের

এ বিষয়ে স্থানীয় বারশত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এমএ কাইয়ূম শাহ্ বলেন, স্বর্গীয় রূপে সজ্জিত যেন আনোয়ারার পারকি বিচ, যা কক্সবাজার সৈকতের কিছুটা হলেও স্বাদ মেটায়। যেখানে প্রকৃতি তার সকল সৌন্দর্য ঢেলে সাজিয়েছে। কিন্তু বর্তমানে জাহাজটির কারণে ভেঙে গেছে বাঁধ। শতাধিক ঝাউগাছ উজাড় হয়ে গেছে। জাহাজটি সরিয়ে নেওয়ার পর আবারও পারকি সৈকত হারিয়ে যাওয়া সেই রূপ ফিরে পাবে বলে আশা করছি।

ইমরান/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm