অজিদের শক্তি অনুপ্রেরণা, ব্ল্যাক ক্যাপসের ধারাবাহিকতা—বিশ্বকাপের ফাইনাল আজ

অ্যারন ফিঞ্চ নাকি কেন উইলিয়ামসন? কার হাতে আজ প্রথমবারের মতো উঠতে যাচ্ছে টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা? উত্তর পেতে অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছু সময়। বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে মাঠে গড়াবে রোমাঞ্চকর সেই ম্যাচ, টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনাল।

তার আগে ২০১৫ সালে আইসিসির ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফাইনালের সেই স্মৃতি কি তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে দুই দলকে? যেখান থেকে একজন নিতে পারে অনুপ্রেরণা, অন্যজন মধুর শোধ নেওয়ার প্রত্যয়। অস্ট্রেলিয়া নাকি নিউজিল্যান্ড, শেষ হাসি কে হাসবে তা নিয়ে জল্পনা-কল্পনা চলছে কয়দিন ধরেই। ক্রিকেট বোদ্ধা কিংবা ক্রিকেটপ্রেমী—অঙ্কের ছক কষছেন সবাই। উত্তর মেলানো কষ্টের।

চলতি টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের পারফরমেন্স বলছে অস্ট্রেলিয়া নয়, নিউজিল্যান্ড শিবিরেই ছড়িয়ে পড়তে পারে উৎসবের রঙ। ভারত, পাকিস্তানের গ্রুপে থেকেও সহজেই শেষ চারে জায়গা করে নিয়ে সামর্থ্যের বড় প্রমাণ দিয়েছে দলটি। সেমিফাইনালেও উড়তে থাকা ইংল্যান্ডকে করেছে ধরাশয়ী।

আরও পড়ুন: সেমিফাইনালের মহারণে প্রতিশোধ নাকি পুনরাবৃত্তি

ধারাবাহিকভাবেই ভালো করছে নিউজিল্যান্ড। শুধু এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপই নয়, ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই ব্ল্যাক ক্যাপসের পারফরম্যান্স দারুণ। টানা তিন বছর খেলেছে তিন সংস্করণে আইসিসির তিন ইভেন্টের ফাইনালে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আগে দুবার সেমিফাইনালে খেললেও এবারই প্রথম ফাইনালে খেলছে নিউজিল্যান্ড।

ওয়ানডেতে আটবার সেমিফাইনালে খেলা দলটি সবশেষ দুই আসরে হয় রানার্সআপ। তবে কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলছে ২০১৫ আসরের ওয়ানেডে বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ। সেবার প্রথমবার ফাইনালে ওঠে দলটির স্বপ্ন ভেঙেছিল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হেরেই।

যদিও দলটির দলপতি কেন উইলিয়ামসন বলছেন, ‘এবার ভিন্ন কিছু হতে যাচ্ছে। আমরা সেদিক তাকিয়ে আছি। নিজেদের খেলার দিকেই আমাদের মনোযোগ। আমরা জানি, অস্ট্রেলিয়া দল কতটা শক্তিশালী। আমরা সুযোগ কাজে লাগানোর দিকে তাকিয়ে আছি।’ ‘শিরোপা জিততে পারলে এটা হবে দারুণ এক অর্জন। আমাদের সামনে একটি ম্যাচ বাকি। নিজেদের ক্রিকেটে মনযোগ দেওয়া ও (পরিকল্পনা) বাস্তবায়ন করা গুরুত্বপূর্ণ আমাদের জন্য।’

Thai Food

আরও পড়ুন: জয়াবর্ধনে—পোলকের সঙ্গে আইসিসির ‘হল অব ফেমে’ ব্রিটিন

ওয়ানডে বিশ্বকাপের সফলতম দল অস্ট্রেলিয়া। তবে টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে তাদের ভাণ্ডার শূন্য। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে পাঁচটি বিশ্বকাপ জয়ী অস্ট্রেলিয়া ২০ ওভারের বিশ্বকাপে ফাইনালে উঠতে পেরেছে আগে কেবল একবার। ২০১০ আসরে তাদেরকে হারিয়ে প্রথম বৈশ্বিক শিরোপা পায় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ড।

চলতি বিশ্বকাপের আগে টানা পাঁচটি সিরিজ হারে অস্ট্রেলিয়া। ভারত, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও বাংলাদেশের বিপক্ষে হেরে অনেকটাই কোণঠাসা ছিল পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। তবে বড় টুর্নামেন্টের দল অস্ট্রেলিয়া ঠিকই ছন্দ ফিরে পায় সঠিক সময়ে। দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে শুরু করে বিশ্বকাপ। পরে অবশ্য হেরে যায় ইংল্যান্ডের বিপক্ষে।

আরও পড়ুন: পর্দা উঠছে টি—টুয়েন্টি বিশ্বকাপের, আজই মাঠে নামছে বাংলাদেশ

ওই হারের পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি অ্যারন ফিঞ্চের দলকে। পরের ম্যাচে বাংলাদেশকে স্রেফ উড়িয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া। শেষ পর্যন্ত রান রেটে দক্ষিণ আফ্রিকাকে পেছনে ফেলে জায়গা করে নেয় সেমিফাইনালে। সেখানে খাদের কিনারা থেকে ওঠে এসে টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা দল পাকিস্তানকে শেষ চারে থামিয়ে পৌঁছায় ফাইনালে। তাই প্রথমবার টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের ট্রফি ঘরে নিয়ে যেতে উন্মুখ ফিঞ্চরা।

ফাইনালের লড়াইয়ে নামার আগে অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক জানালেন, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম শিরোপা জেতার জন্য কতটা উন্মুখ তারা। ‘আমার মনে হয় না, এটা (ট্রফি জয়) প্রত্যাশার বাইরে কিছু। আমরা টুর্নামেন্ট জিততে পরিষ্কার একটি পরিকল্পনা নিয়ে এসেছি। বিশ্বাস করি, তা করার মতো একটি স্কোয়াড আমাদের রয়েছে।’

এসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm