দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম জয়, এক ম্যাচে অনেক নায়ক

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তাদের মাটিতে টাইগাররা প্রথম জয় পেয়েছে। এর আগে ৬ টেস্ট, ১০ ওয়ান ডে এবং ৪ টি-টোয়েন্টির সবগুলো ম্যাচে টাইগাররা পরাজিত হয়েছিল।

শুক্রবার (১৮ মার্চ) সেঞ্চুরিয়নে টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা।

নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে বাংলাদেশ সংগ্রহ ছিল ৩১৪ রান। জবাবে দক্ষিণ আফ্রিকা করে ২৭৬ রানে। ফলে ৩৮ রানে জয় পায় টাইগাররা।

আরও পড়ুন : বিশ্ব দেখবে বাংলাদেশ—সমুদ্রদর্শন আর ঢেউয়ের গর্জনে চলবে আন্তর্জাতিক ম্যাচ

তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিতে এগিয়ে গেলো বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ ২০ মার্চ জোহান্নেসবার্গে অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে ব্যাট হাতে টাইগার দলের হয়ে লিটন দাস, সাকিব আল হাসান ও ইয়াসির আলী করে অর্ধশতক।

শুরুতে দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস ১০ ওভার শেষে ৩৩ রান সংগ্রহ করে। এই জুটি দলীয় ৫০ রান পূর্ণ করে ১৬তম ওভারের প্রথম বলে।

৬৭ বল খেলে ৪১ রান করে ২২তম ওভারে অ্যান্ডিল ফেহলুকায়োর বলে এলবিডব্লিউ হয়ে মাঠ ছাড়েন তামিম ইকবাল।

এরপর ৬৬ বলে অর্ধশতক তুলে লিটন দাস বিদায় নেন কেশব মহারাজের বলে। ব্যক্তিগত ৯ রানের মাথায় কেশবের বলে বিদায় নেন মুশফিকও।

আরও পড়ুন: খেলোয়াড়েরা টিকা না নেওয়ায় বাতিল হয়েছে বাংলাদেশের দুটি ম্যাচ

মুশফিকের বিদায়ের পর ইয়াসির আলীকে সঙ্গে নিয়ে ঝড় তোলেন সাকিব আল হাসান। ৭২ বল খেলে এই জুটি তুলেন ১০০ রান।

সাকিব ৬৪ বলে ৭৭ রান, ইয়াসির আলী ৪৩ বলে ৫০ তুলে বিদায় নেন। শেষ পর্যন্ত টাইগারদের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৭ ইউকেটে ৩১৪ রান।

জবাবে দক্ষিণ আফ্রিকা ব্যাট করতে নেমে ৪৮ দশমিক ৫ ওভারে ১০ উইকেটে সংগ্রহ করে ২৭৬ রান।

বাংলাদেশ এবং জয়ের মাঝে দাঁড়িয়ে যান দক্ষিণ আফ্রিকার মিলার। ৭৯ রানে মিলারকে থামান মিরাজ। মিরাজ ৬১ রানে ৪ উইকেট পেয়েছেন।

এর আগে ৮৬ রান করে দক্ষিণ আফ্রিকাকে এগিয়ে দেন ডুসেন। তাসকিনের বলে ডুসেনের ক্যাচ নেন ইয়াডিসর আলী। ৩৬ রান দিয়ে তাসকিন নেন ৩ উইকেট।

সিরিজের প্রথম ম্যাচে ম্যাচসেরা হয়েছেন সাকিব আল হাসান। তবে এদিন ম্যাচসেরার দাবিদার ছিল কিন্তু অনেকেই। শুরুতেই দুর্দান্ত বোলিংয়ে প্রোটিয়াস ইনিংসে কাঁপন ধরিয়ে দেন তাসকিন। ইকোনমিটাও অসাধারণ।

আবার কৃতিত্ব দিতে হয় মিরাজকেও। প্রথম ওভারে ১১ রান দেওয়া মিরাজ পরে ফিরেছেন দুর্দান্তভাবে। দক্ষিণ আফ্রিকা যখন ম্যাচ নিজেদের করে নেওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল তখনই উইকেট তুলে নেন মিরাজ।

আবার পরিস্থিতি বিবেচনায় তামিম-লিটনের উদ্বোধনী জুটিটাও কম গুরুত্বপূর্ণ ছিল না। এই ওপেনিং জুটির ওপর ভিত্তি করেই যে বড় ইনিংস গড়েছিল বাংলাদেশ!

ভুলে যাওয়া যাবে না ইয়াসির আলীর হাফ সেঞ্চুরিটাও। সাকিবের সঙ্গে ইয়াসিরের জুটিটাই সংগ্রহের পুরো চিত্রটা ওলটপালট করে দিয়েছিল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ : ৩১৪/৭ (তামিম ৪১, লিটন ৫০, সাকিব ৭৭, ইয়াসির ৫০ ; ইয়ানসেন ২/৫৭, মহারাজ ২/৫৬)

দক্ষিণ আফ্রিকা: ৪৮.৫ ওভারে ২৭৬ (ফন ডার ডুসেন ৮৬, মিলার ৭৯, বাভুমা ৩১ ; শরীফুল ২/৪৭, তাসকিন ৩/৩৬, মিরাজ ৪/৬১)।

আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm