পুলিশ যাওয়ার পরপরই হামলা, কিরিচের কোপে তিন নারীসহ রক্তাক্ত ৪

পেকুয়ায় পূর্বশত্রুতার জের ধরে একই পরিবারের চারজনকে রক্তাক্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় গুরুতর আহতদের পেকুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে ।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৪টায় টৈটং নাপিতখালী দক্ষিণপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে এ ঘটনায় শনিবার (২৯ জানুয়ারি) ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে তৈয়বুল ইসলাম বাদী হয়ে পেকুয়া থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। এরপর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

হামলায় আহতরা হলেন- টৈটং নাপিতখালী দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত শফিকুর রহমানের ছেলে আবু তালেব (৫৫), তাঁর স্ত্রী মনিফা জান্নাত (৪৮), মেয়ে শাফিয়া জান্নাত (৩০) এবং ওয়াকিয়াহ জন্নাত শিফা (১৭)।

আরও পড়ুন: রক্তাক্ত সাতকানিয়া—দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে শিশু গুলিবিদ্ধ

আহতের ছেলে তৈয়বুল ইসলাম বলেন, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে একদল সন্ত্রাসী আমাদের জমি থেকে মাটি খনন শুরু করে। আমি থানায় ফোন দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মাটি খনন না করতে নিষেধ করে চলে যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আবদুল কাদের, আব্দুল মুবিন, আহমদ হোছাইন, শফিকুর রহমান, ফজলুল কাদের, আরিফুল হক, হাবিব উল্লাহ, এহছান উল্লাহ ও সোহেলের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার পরিবারের সদস্যদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় স্থানীয়রা উদ্ধার করতে এগিয়ে আসে।

তৈয়বুল ইসলাম আরও বলেন, হামলায় লোহার রডের আঘাতে আমার মা-বাবার মাথা ফেটে গেছে। বোনের বাম হাতের হাড় ভেঙে গেছে এবং কিরিচের কোপে ছোট বোনের ডান হাত গুরুতর জখম হয়েছে। তাদের পেকুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্যাপারে পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, লিখিত এজাহার পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। মারধরের এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মুকুল/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm