৬০ হিজড়াকে বিনাটাকায় হেপাটাইটিস টিকা দিলো লিভার কেয়ার

হেপাটাইটিস নির্মূলে সচেতনতার বিকল্প নেই—ডা. আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ

২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্ব হতে হেপাটাইটিস নির্মূলে জনস্বাস্থ্য সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের লিভার বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও ‘লিভার কেয়ার গ্রুপ’-এর সভাপতি ডা. আবদুল্লাহ আল মাহমুদ।

রোববার (২৭ জুন) সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস ২০২১ উপলক্ষে আয়োজিত সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ডা. মাহমুদ বলেন, সমাজের প্রতিটি সচেতন অংশের পাশাপাশি অবহেলিত ও তৃতীয় লিঙ্গ সম্প্রদায়কে হেপাটাইটিস রোগ এবং এর প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতন করার মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে হেপাটাইটিস নির্মূলে করা সম্ভব।

তিনি বলেন, ভাইরাল হেপাটাইটিস বর্তমান বিশ্বের একটি অন্যতম জনস্বাস্থ্য সমস্যা। বিশ্বের প্রায় সাড়ে ৩২ কোটি লোক হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত। দুঃখজনক হলেও সত্যি, তাদের মধ্যে প্রায় ৩০ কোটি অর্থাৎ আক্রান্ত প্রতি ১০ জনের মধ্যে ৯ জনই নিজের শরীরে এই রোগের উপস্থিতি সম্পর্কে জানেন না। সারাবিশ্বে প্রতিবছর প্রায় ১৩ লাখ লোক হেপাটাইটিসে মারা যান। লিভার ক্যান্সারে মারা যাওয়া প্রতি ৩ জনের ২ জনই হেপাটাইটিস ‘বি’ বা ‘সি’ তে আক্রান্ত হয়ে থাকেন। আমাদের দেশের প্রায় ১ কোটি মানুষ হেপাটাইটিস ‘বি’ ও ‘সি’তে আক্রান্ত । তাদের কারো কারো বিভিন্ন সময়ে ক্যান্সসারসহ লিভারের অন্যান্য জটিল রোগ হচ্ছে। এ দেশের প্রায় ৩.৫% গর্ভবতী মায়েরা হেপাটাইটিস-বি ভাইরাসে আক্রান্ত। এই ভাইরাস তাদের নবজাতকের শরীরে সংক্রমিত হতে পারে।

তিনি বলেন, হেপাটাইটিস-বি ও সি ভাইরাসজনিত ‘ক্রনিক বা দীর্ঘমেয়াদী’ হেপাটাইটিসে আক্রান্ত রোগীদের বেশিরভাগেরই কোনো লক্ষণ বা উপসর্গ থাকে না। কারো কারো ক্ষেত্রে লক্ষণগুলো হলো- অবসাদ, ক্ষুধামন্দা, জ্বরজ্বর ভাব, শরীর শুকিয়ে যাওয়া ইত্যাদি। বাংলাদেশের শতকরা ১ ভাগ লোক হেপাটাইটিস সি ভাইরাসের বাহক। যাদের অধিকাংশই জানেন না তারা এই রোগে ভুগছেন।

সভায় চট্টগ্রাম জেলা সমাজসেবা কার্য্যালয়ের উপপরিচালক শহিদুল ইসলাম লিভার কেয়ার গ্রুপকে ধন্যবাদ দিয়ে সরকারের পাশাপাশি আরও অন্যান্য সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে হেপাটাইটিস সচেতনতায় অবদান রাখার আহ্বান জানান।

সভায় নগরের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা তৃতীয় লিঙ্গের ৬০ জন ব্যক্তি অংশ নেন।

সভায় অংশ নেওয়া তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিরা

পরে লিভার কেয়ার গ্রুপের উদ্যোগে তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের হেপাটাইটিস বি ও সি শনাক্তকরণ পরীক্ষা এবং হেপাটাইটিস বি’র টিকা দেওয়া হয়।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ডা. তারেক শামশ, সমাজকল্যাণ সম্পাদক তানভির শাহরিয়ার রিমন, দপ্তর সম্পাদক ডা. দীলিপ চৌধুরী ও কোষাধক্ষ ডা. নাদিম আহমেদ।

স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক এই সভায় কারিগরি সহায়তা করে এপিক হেলথ কেয়ার। বিনামূল্যে টিকাদান কর্মসূচিতে সহায়তা করে বীকন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানী।

কাউছার/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm