চট্টগ্রামে করোনা : ১০ শূন্যে ‘স্বস্তি’

করোনায় সুখবর রয়েছে দক্ষিণ চট্টগ্রামে। গত ২৪ ঘণ্টার করোনা পরীক্ষা রিপোর্টে জেলার এ অংশের ৭ উপজেলার ৬টিতেই কারো শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি।

এদিকে উত্তর চট্টগ্রামের ৭ উপজেলার ৪টি ছাড়া বাকি ৩টিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩৯ জনের শরীরে। তবে ৩ সপ্তাহ আগেও যে ৩ উপজেলা ‘হটস্পট’ হিসেবে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছিল সেই ফটিকছড়ি, সীতাকুণ্ড ও মিরসরাইয়ে এদিন কারো শরীরে করোনার উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১ হাজার ৪৮১ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮২ জনের শরীরে। শনাক্তের হার ৫.৫৪ শতাংশ।

এর আগের দিন ১ হাজার ৫৪২ নমুনা করোনা শনাক্ত হয় ১০৬ জনের। শনাক্তের হার ছিল ৬.৮৮ শতাংশ।

আরও পড়ুন : করোনায় ‘সুখবর’ : চট্টগ্রামে নমুনা বাড়লেও শনাক্ত বাড়েনি, কমেছে মৃত্যু  

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় কমেছে মৃত্যুও। এদিন উপজেলায় কোনো মৃত্যু হয়নি। নগরে মারা গেছেন ১ জন। এর আগের দিন মারা গিয়েছিলেন ২ জন।

শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১ জনসহ এ পর্যন্ত জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ২৬৫ জন। এছাড়া জেলায় মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ লাখ ৭৪৮ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হওয়াদের মধ্যে নগরের ৪৩ জন এবং উপজেলার ৩৯ জন।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে ৯, এন্টিজেন টেস্টে ১৮ এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ২০ করোনার নমুনা পরীক্ষায় কারো শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। এছাড়া নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও আরটিআরএলে।

গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১১৪ নমুনা পরীক্ষায় ৩০ জন, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৫৮৮ নমুনা পরীক্ষায় ১১ জন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ১৫১ নমুনা পরীক্ষায় ২৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন : চট্টগ্রামে করোনা : ‘মৃত্যু’ যেন পাগলা ঘোড়া

ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৫৯ নমুনা পরীক্ষায় ৮ জন, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৩৯৯ নমুনা পরীক্ষায় ৫ জন, মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে ১৮ নমুনা পরীক্ষায় ২ জন, এপিক হেলথ কেয়ারে ১০৪ নমুনা পরীক্ষায় ৩ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

তবে নগরের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে উপজেলা। এদিন ১৪ উপজেলার মধ্যে ১০টিতেই কোনো ব্যক্তির শরীরে করোনার অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। উপজেলাগুলো হলো- লোহাগাড়া, সাতকানিয়া, বাঁশখালী, চন্দনাইশ, পটিয়া, বোয়ালখালী, ফটিকছড়ি, সীতাকুণ্ড, মিরসরাই ও সন্দ্বীপ।

এছাড়া আনোয়ারায় ৪ জন, রাঙ্গুনিয়া ৭ জন, রাউজান ১২ জন, হাটহাজারীতে ১৬ জনের শরীরে করোনা পাওয়া গেছে।

এরমধ্যে দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৭ উপজেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৪ জন। আর উত্তর চট্টগ্রামের ৭ উপজেলায় ৩৫ জন।

ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm