রাতের আঁধারে ঘর থেকে তুলে মুক্তিপণ আদায়—সেই ৬ পুলিশের বিরুদ্ধে চার্জগঠন

আনোয়ারায় পুলিশ পরিচয়ে এক ঠিকাদারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায়ের মামলায় ছয় পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে চার্জশিট গঠনের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রাম সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার এ আদেশ দেন।

অভিযুক্ত ছয় পুলিশ সদস্য হলেন- চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) এসএএফ শাখার কনস্টেবল আব্দুল নবী (২৭), এসকান্দর হোসেন (২৬), মনিরুল ইসলাম (২৫), শাকিল খান (২৫), মো.মাসুদ (২৫) ও মোর্শেদ বিল্লাহ (২৬)।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী আবদুল মান্নান পেশায় একজন ঠিকাদার। গত ৩ ফেব্রুয়ারি রাত ২টার দিকে আনোয়ারা উপজেলার পূর্ব বৈরাগ গ্রামের বাড়িতে কিছু লোক এসে দরজা খুলতে বলেন। পরে পরিবারের সদস্যরা ঘরের দরজা খুললে পুলিশের লোক পরিচয় দিয়ে আবদুল মান্নানকে ৮ জন ব্যক্তি মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায়।

আরও পড়ুন: দিনদুপুরেই অপহরণ—মুক্তিপণ চেয়ে পুলিশের কব্জায় ২ সন্ত্রাসী

পরবর্তী তাকে পটিয়া উপজেলার ভেল্লাপাড়া রাস্তার পাশের একটি টং চায়ের দোকানে নিয়ে আটকে রাখে। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে ও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। একপর্যায়ে ২ লাখ টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়ার চুক্তি হয়। বিষয়টি আবদুল মান্নান তার পরিবারকে জানালে ওইদিন রাত ৪টার দিকে ১ লাখ ৮০ হাজার ৫০০ টাকা তাদের হাতে তুলে দেওয়ার পর ভোর ৫টার দিকে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়।

এরপর এ ঘটনায় গত ৭ ফেব্রুয়ারি আনোয়ারা থানায় মামলা দায়ের করেন ঠিকাদার আবদুল মান্নান। পরবর্তী ঘটনার সঙ্গে সিএমপির এসএএফ শাখার ৬ পুলিশ সদস্যদের সম্পৃক্ততা পাওয়ার পর তাদের আটক করা হয়। এরপর সাময়িক বরখাস্ত করে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী মো. আবদুল মান্নান আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আমি একজন ঠিকাদার ব্যবসায়ী। সেদিন কোনো কারণ ছাড়া পুলিশ পরিচয়ে তারা আমাকে ঘর থেকে তুলে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমার বিরুদ্ধে থানায় মামলা রয়েছে এবং বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টা করে। একপর্যায়ে ১ লাখ ৮০ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে মুক্তি পায়।

তিনি আরও বলেন, যাদের কাছে আমরা সাধারণ জনগণ নিরাপদ থাকার কথা। তারা যদি এমন ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে যায় তাহলে সাধারণ মানুষ কাদের বিশ্বাস করবে। এ ঘটনায় আমি জড়িতদের সর্বোচ্চ বিচার চাই।

এএইচ/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm