কক্সবাজার রণক্ষেত্র—নির্বাচনি সংঘর্ষে যুবক খুন, পুলিশসহ রক্তাক্ত ১০

কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকূল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে এক যু্বক খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশসহ আহত হয়েছেন অন্তত দশজন।

বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) বেলা সোয়া ১২টার দিকে ওই ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের তেতৈয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। নিহত যুবকের নাম আক্তারুজ্জামান পুতু (৩৫)। তিনি খুরুশকূল ইউনিয়নের তেতৈয়া গুইল্ল্যাবাপের পাড়ার মমতাজ আহমদের ছেলে।

প্রিসাইডিং কর্মকর্তা নুরুল হুদা জানিয়েছেন, তেতৈয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তারের জেরে সাধারণ সদস্য পদপ্রার্থী আনোয়ারা বেগম ও আবু বক্কর সিদ্দীকের কর্মী-সমর্থকদের সংঘর্ষ বাধে।

তিনি বলেন, এ সময় উভয়পক্ষ লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায় ও গুলি ছোঁড়ে। ঘটনার পর থেকে ওই কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে তিন পুলিশ সদস্যসহ কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছেন। তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা আক্তারুজ্জামান পুতুকে মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন: কক্সবাজারে ভোটযুদ্ধ কাল—নৌকার জয়ে ‘বাধা’ স্বতন্ত্র ও বিদ্রোহীরা

কক্সবাজার সদর হাসপাতালে দায়িত্বরত এএসআই রিপন চৌধুরী বলেন, সংঘর্ষে আহতদের হাসপাতালে আনা হয়েছে। এদের মধ্যে তিন পুলিশ সদস্যও রয়েছেন। নিহতের লাশ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এস এম শাহাদাত হোসেন বলেন, জাল ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে প্রথমে মারামারি লাগে। এরপর কেন্দ্রের বাইরে গিয়ে দুপক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে ধারাল অস্ত্রের আঘাতে কয়েকজন আহত হন।

নিহত আক্তারুজ্জামান পুতু ১ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী শেখ কামালের চাচাত ভাই। বৃহস্পতিবার সকাল আটটা থেকে কক্সবাজারের কক্সবাজার সদর, রামু ও উখিয়া উপজেলার ২১টি ইউনিয়নের ভোটগ্রহণ চলছে।

এসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm