এসএসসিও পাস করেননি, তিনিও সাংবাদিক!

মাধ্যমিকের গণ্ডি না পেরোলেও তিনি সাংবাদিক। নিজেকে পরিচয় দেন বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিক হিসেবে। তার গলায় সবসময় ঝুলানো থাকে বিভিন্ন গণমাধ্যমের একাধিক পরিচয়পত্র।

‘নামকরা’ এই সাংবাদিকের নাম মো. ইমরান (২৯)। এখন তিনি হাজতে। আগ্রাবাদের একটি রেস্টুরেন্টে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে শুক্রবার (৩০ জুলাই) রাতে তিনি ধরা পড়েছেন পুলিশের জালে।

জানা যায়, শুক্রবার রাতে হঠাৎ আগ্রাবাদের একটি রেস্টুরেন্টে হানা দেন ইমরান। দাবি করেন এক প্যাকেট বিরিয়ানি ও এক হাজার টাকা। তা না হলে মোবাইল অন করে লাইভে হোটেলের ১২টা বাজানোর হুমকি দেন। হোটেলের ম্যানেজার কৌশলে পুলিশকে ফোন করেন। পরে পুলিশ এসে ইমরানকে আটক করে।

পুলিশ জানায়, ইমরান ও তার পরিবার মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তার বাবা ডবলমুরিং থানা এলাকায় ডাইল বাবুল নামে পরিচিত। তার মা পরিচিত ডাইল শারমিন নামে। তাদের সবার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে।

পুলিশ আরও জানায়, ইমরানের কাছ থেকে দৈনিক চট্টগ্রামের পাতা ও আলোকিত চট্টগ্রাম ডটকম নামে দুটি গণমাধ্যমের পরিচয়পত্র, মোবাইল ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে। এর আগে ইমরান সিভয়েসডটকমের সাংবাদিক পরিচয় দিয়েও দোকানে দোকানে চাঁদাবাজি করতো। তবে গ্রেপ্তারের সময় সিভয়েসের কোনো পরিচয়পত্র কিংবা ভিজিটিং কার্ড পায়নি পুলিশ।

2 মন্তব্য
  1. মোরশেদ আলম বলেছেন

    এই রকম অনেক ভূয়া সাংবাদিক আমাদের সমাজে নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। তারা একদিকে যেমন সাংবাদিকতার ন্যায় পবিত্র পেশাকে কলঙ্কিত করছে অন্যদিকে নিরীহ জনগণকে বিভিন্নভাবে ভয় ভীতির মাধ্যমে চাদাঁ আদায় করছে।

  2. নাঈম হোসেন বলেছেন

    সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা। তাই যারা এ পেশায় জড়িত তাদেরকে অবশ্যই উচ্চ শিক্ষিত হওয়া উচিত। কারণ একজন সাংবাদিক সরকারি কর্মকর্তার অফিসে যখন যাবেন তখন দেখা যায় ঐ অফিসার কমপক্ষে মাস্টার্স পাশ। তাই তার সঙ্গে কথা বলতে হলে অন্তত নিজকে তার সমপরিমাণ শিক্ষিত হওয়া উচিত। তাই একজন সাংবাদিক কে কমপক্ষে ডিগ্রি পাশ হওয়া দরকার।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm