‘আ.লীগ নেতা হতে গিয়ে জেলে’—৭ বছর পালিয়েও ধরা সেই ‘কাউন্সিলর’

নাশকতার মামলায় ফেরারি আসামি হয়ে পালিয়ে ছিলেন ৭ বছর। এর মধ্যে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দিতে চেষ্টাও করেছিলেন। সেটা না পারায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন নির্বাচনে। হতে চেয়েছিলেন কাউন্সিলর। কিন্তু সেখানেও আওয়ামী লীগের সমর্থন না মেলায় শেষ পর্যন্ত সরেই দাঁড়াতে হয়েছিল।

তিনি কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা নূর হোসেন (৪৫)। নাশকতা মামলা পরোয়ানা নিয়ে ৭ বছর পালিয়ে থাকার পর অবশেষে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হতে হলো তাকে।

আরও পড়ুন: চকরিয়ায় বন্যা—খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট, ক্ষতবিক্ষত সড়ক

বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) রাত ১টার দিকে পুলিশ নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। নূর হোসেন পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ড বাজার পাড়ার মৃত আহমদ কবিরের ছেলে ও ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি।

চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, ২০১৩ সালে সরকার পতনের আন্দোলনে বিএনপি’র নেতা-কর্মীদের নিয়ে নাশকতা চালায় নুর হোসেন। পরে ওইসব ঘটনায় তার বিরুদ্ধে চকরিয়া থানায় নাশকতা মামলা দায়ের করে পুলিশ। পরে আদালত তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করেন।

তিনি আরও বলেন, আদালত কৃর্তক ওয়ারেন্টের পর তিনি পলাতক ছিলেন। পুলিশ তাকে বুধবার রাতে গ্রেপ্তার করে। সকালে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘ভিক্ষুক সেজে’ যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ধরল কোতোয়ালীর পুলিশ  

উল্লেখ্য, নাশকতা মামলার পর নুর হোসেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের মাধ্যমে ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগে সভাপতি পদের জন্য বেশ চেষ্টা তদবির চালান। কিন্তু তার বিরুদ্ধে সরকার বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণসহ নাশকতা মামলা থাকায় তাকে দলে জায়গা দেননি পৌর আওয়ামী লীগের নেতারা।

নাশকতা মামলার আসামি নুর হোসেন চলতি পৌরসভা নির্বাচনেও ১নং ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী হয়েছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতাদের সমর্থন না পাওয়ায় তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন।

মুকুল/এসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm