কয়েক সেকেন্ডেই মোবাইল আইএমইআই বদলে ফেলে অপরাধীরা

বিশেষ সফটওয়্যারে চোরাই মোবাইল ও ল্যাপটপেরর ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি (আইএমইআই) নম্বর মূহূর্তেই বদলে ফেলে চোরচক্র। এরপর তা কম দামে বিক্রি করা হয়। আইএমইআই নম্বর বদলে ফেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষে ফোনগুলো খুঁজে বের করা কঠিন হয়ে পড়ে। এতে অপরাধী চক্রও থেকে যায় আড়ালে।

নগরের পুরাতন রেলস্টেশন এলাকা থেকে ধরা পড়েছে তিন সদস্যের এমন একটি চক্র। এ সময় তাদের কাছ থেকে চোরাই মোবাইল ফোনের আইএমইআই পরিবর্তন করার বিভিন্ন যন্ত্র, ৩টি ল্যাপটপ ও ১১৭টি বিভিন্ন ব্যান্ডের মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (৬ এপ্রিল) নগরের পুরাতন রেলস্টেশন সংলগ্ন বাগদাদ হোটেলের গলির ভেতর থেকে তাদের আটক করা হয়।

আরও পড়ুন: তরুণীর সঙ্গে ছিল ৩ যুবক, পাওয়া গেল ২৮ মোবাইল—৪ ল্যাপটপ

আটকরা হলেন- মো.সাজ্জাদ (২০), হাবিবুল্লাহ মিজবাহ (২৫) ও মো. মরাশেদ (২০)। পলাতক রয়েছে জয় চৌধুরী (২৩)।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম নগর পুলিশের দক্ষিণ জোনের উপকমিশনার (ডিসি) জসিম উদ্দিন সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

উপকমিশনার (ডিসি) জসিম উদ্দিন বলেন, চোরাই বিভিন্ন ব্যান্ডের মোবাইল সেট, ল্যাপটপ ও চোরাইকৃত মোবাইল সেটের আইএমইআই পরিবর্তনের বিভিন্ন যন্ত্রসহ চক্রের ৩ সদস্যকে আটক করা হয়। তারমধ্যে একজন মোবাইল কোম্পানিতে চাকরি করতো। সেখানে সে মোবাইল সেটের টেকনিক্যাল বিষয়গুলো আয়ত্ব করে। বিষয়গুলো আয়ত্ব হয়ে গেলে একপর্যায়ে সে চাকরি ছেড়ে দেয়। চাকরি ছেড়ে যুক্ত হয় লুণ্ঠিত মোবাইল সেটের আইএমইআই পরিবর্তনের অবৈধ কাজে। তার এই দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তোললে চোরাই মোবাইল চক্র।

তিনি আরও বলেন, তারা চোরাই মোবাইল সেট হাতে পাওয়া মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে আইএমইআই পরিবর্তন করে ফেলে। আইএমইআই পরিবর্তন করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে ছয় মাস অপেক্ষা করে তারপর মোবাইল সেটগুলো বাজারে ছেড়ে দেয়। যার কারণে চোরাই ফোনগুলো আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষে খুঁজে বের করা কঠিন হয়ে পড়ে। এতে অপরাধী চক্রও আড়ালে থেকে যায়।

জানা যায়, গতকাল নগরের পুরাতন রেলস্টেশন এলাকার বাগদাদ হোটেলের গলির ভেতর থেকে আসামি সাজ্জাদকে আটক করা হয়। পরে তার সঙ্গে থাকা একটি ব্যাগ থেকে ৫টি মোবাইলসেট উদ্ধার করা হয়। ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায় মোবাইল সেটগুলো বিভিন্ন চোরদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে আইএমইআই পরিবর্তন করে কম দামে বিক্রি করে দিত।

আরও পড়ুন: কাজীর দেউড়ি মুক্তমঞ্চের সামনে থেকে মোবাইল ছিনিয়ে নিচ্ছিল ৪ যুবক, ৩ জন হাতেনাতে ধরা

বিভিন্ন চোরদের থেকে মোবাইল সেটগুলো সংগ্রহ করে কোতোয়ালী থানার সিডিএ মার্কেটের রয়েল প্লাজার ইনোভেটিভ ফোন কেয়ার থেকে আইএমইআই পরিবর্তন করে নেয়। আএমইআই পরিবর্তন করে দিত ইনোভেটিভ কেয়ারের মালিক হাবিবুল্লাহ মিসবাহ ও তার কর্মচারী রাশেদ। পরে তাদের দোকান থেকে আইএমইআই পরিবর্তন করা অবৈধ ১১৭টি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়।

তদন্তে আরো উঠে আসে, রিয়াজদ্দিন বাজারের তামাকুমন্ডি লেইনের হক শপিং সেন্টারের চৌধুরী ডট কম দোকানের মালিক জয় চৌধুরীর নাম। ঘটনার পর জয় চৌধুরী পলাতক রয়েছে। তাকে আটকের চেষ্টা আব্যাহত রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলন আরও উপস্থিত ছিলেন এডিসি আমিনুল ইসলাম, এসি (কোতোয়ালী) মো. মুজাহিদুল ইসলাম ও কোতোয়ালী থানার ওসি জাহেদুল কবির।

এএইচ/এসআই

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm