চট্টগ্রামে দলবেঁধে তরুণী ধর্ষণ, রেহাই পেল না কেউই

পরিচিত এক ব্যক্তির সাথে দেখা করতে এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক পোশাককর্মী। বৃহস্পতিবার (২৭ মে) রাত ৯টার দিকে নগরের বায়েজিদ থানার শেরশাহ কলোনি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনায় জড়িত তিন জনকে দিবাগত রাতেই গ্রেফতার করেছে বায়েজিদ থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সাইফুর রহমান সুমন (২৮), মেহেদী হাসান জনি (৩২) ও মো. আলম (২৫)।

এদের মধ্যে সুমন এবং জনি ধর্ষণ করলেও আলম ছিলেন তাদের সহযোগী। সুমন ও আলম পেশায় পোশাক কারখানার শ্রমিক এবং জনি গাড়িচালক।

বায়েজিদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, ‘শেরশাহ কলোনির সরকারি কোয়ার্টার এলাকায় পূর্ব পরিচিত মুন্না নামের এক ব্যক্তির সাথে বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে দেখা করতে যান ওই পোশাককর্মী। এ সময় সুমন ও জনি ওই পোশাককর্মী এবং মুন্নাকে আটক করে। মুন্নাকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয় তারা। মুন্না কিছু দূর গিয়ে দাঁড়ায়। পরে সুমন ও মেহেদী ওই পোশাককর্মীকে জোর করে পাশের একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। বাইরে পাহারা দেয়ার দায়িত্বে ছিলেন আলম।’

কামরুজ্জামান আরো বলেন, ‘ধর্ষণ শেষে তারা মুন্নাকে ধরে এনে ওই নারীর পাশে দাঁড় করিয়ে ছবি তুলে এবং লোকজন ডেকে ছবিগুলো দেখিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ করতে এসেছে বলে অপবাদ দেয়। এর কিছুক্ষণ পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। এরপর মুন্না ও ওই পোশাককর্মী রাত দেড়টায় থানায় এসে অভিযোগ করেন। পরে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়।’

ভিকটিমকে চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে এবং আটকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানায় পুলিশ।

আলোকিত চট্টগ্রাম

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm