নির্বাচনি সহিংসতা : স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে নৌকা প্রার্থীর মামলা

চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন ২০ সেপ্টেম্বর। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে নির্বাচনি পরিবেশ।

গত সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে নৌকার প্রার্থী, কর্মী ও সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। এ  ঘটনায় নৌকার প্রার্থী মেয়র আলমগীর চৌধুরী বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় মামলা করেছেন। এতে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জিয়াবুল হককে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়।

নৌকার প্রার্থী মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, সোমবার দুপুরে পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের রেইন কমিউনিটি সেন্টারে নৌকার পক্ষে প্রচারণা করছিলেন আমার কর্মী-সমর্থকরা। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াবুলের নেতৃত্বে তার কর্মী-সমর্থকরা মারধর শুরু করেন। একপর্যায়ে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিও বর্ষণ করা হয়। হামলায় আহত সবুজকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: সুদীপ্ত ‘কিলিং মিশনের’ প্রধান মোক্তার—ইয়াবা নিয়ে গ্রেপ্তার 

এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন মেয়র প্রার্থী আলমগীর চৌধুরীসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী জিয়াবুল হক। তিনি বলেন, আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে নৌকার প্রার্থী আলমগীর চৌধুরী মিথ্যা মামলা করেছেন। নির্বাচনে ভরাডুবি হবে বুঝতে পেরে এসব তালবাহানা শুরু করেছেন তিনি।

Thai Food

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ জোবায়ের আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, নির্বাচনি প্রচারণায় হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। জিয়াবুল হককে প্রধান করে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে একটি এজাহার দেন আলমগীর চৌধুরী। পরে এটি মামলা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, কেউ যদি নির্বাচেনর সুষ্ঠ পরিবেশকে অশান্ত করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: মাদার স্টিল শিপব্রেকিং ইয়ার্ডে বিস্ফোরণ—পুড়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, এবারের চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে চার মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীসহ মোট ৬৮ জন অংশগ্রহণ করছেন। নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৪৮ হাজার ৭২৪ জন । এর মধ্যে ২৫ হাজার ৮৯৯ জন পুরুষ এবং ২২ হাজার ৮২৫ জন মহিলা ভোটার।

প্রসঙ্গত, করোনার কারণে দুই দফা স্থগিত হয় চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন। চলতি বছরের ১১ এপ্রিল প্রথম পৌরসভা নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তবে করোনার কারণে প্রথম দফার নির্বাচন স্থগিত করে ২১ জুন দ্বিতীয় দফায় নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। করোনার কারণে সেটিও স্থগিত হয়ে যায়। সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ২০ সেপ্টেম্বর নির্বাচনের নতুন তারিখ ঘোষণা করা হয়।

মুকুল/আরবি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm