‘জন্মাষ্টমী’—এবারও মহাশোভাযাত্রায় মানা, উৎসব হবে অনাড়ম্ভর

বৈশ্বিক মহামারী করোনারভাইরাসের কারণে এবারও অনাড়ম্ভরভাবে পালিত হবে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীর তিনদিনের উৎসব। গতবছরের মতো এবারও বের করা হবে না মহাশোভাযাত্রা।

রোববার (২৯ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১২টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান হলে শ্রীশ্রী জন্মাষ্টমী উদ্‌যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, এ বছর জন্মাষ্টমী উৎসবের খরচের অর্থ দিয়ে সারাদেশের মহানগর, জেলা ও উপজেলায় করোনাকালীন অসহায় মানুষদের এবং অনাথালয়ে বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী, শিক্ষাসামগ্রী ও চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হবে। নগরে এবার ৮০টি মন্দিরে জন্মাষ্টমীর পূজা-অর্চনা অনুষ্ঠিত হবে।

আরও পড়ুন: দুর্গাপূজায় বাধা, হিন্দুদের হাজারো লোক ঘেরাও করল কৈবল্যধাম মন্দির

প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, বাংলাদেশে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী সাড়ম্বরে পালন মূলত চট্টগ্রাম থেকেই শুরু হয়েছিল। ১৩৯০ বঙ্গাব্দে জন্মাষ্টমী উদ্‌যাপন পরিষদের পথচলা শুরু। ৩৮ বছর ধরে চট্টগ্রামে জন্মাষ্টমী উৎসব উদ্‌যাপন করা হচ্ছে। ঢাকাসহ দেশের ৫৫টি জেলায় পরিষদের শাখা কমিটি রয়েছে। করোনাকালীন সময়ে প্রায় ২০ লাখ টাকার খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। সামাজিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সাম্প্রদায়িক অপশক্তির সহিংসতার বিরুদ্ধেও বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে এই সংগঠন।

তিনি আরও বলেন, সনাতনীদের ঘরবাড়ি, মঠ-মন্দির, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, লুটপাট, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, সাধু-সন্ন্যাসী ও পুরোহিত হত্যাসহ সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে পরিষদ দেশব্যাপী বিক্ষোভ, মিছিল, কালো পতাকা উত্তোলন, গণঅনশন, মহাসমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। জন্মাষ্টমী উদ্‌যাপন পরিষদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এরশাদ সরকারের সময়ে একদিনের সরকারি ছুটি আদায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে জন্মাষ্টমীর শুভেচ্ছা বিনিময়কালে পাওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী অর্পিত সম্পত্তি সংশোধনী আইন পাশ এবং হেবা আইনের ন্যায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য আইন পাশ এই সংগঠনের অন্যতম অর্জন।

আরও পড়ুন: ‘অনৈতিক কর্মকাণ্ড’ ইসকনের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করবে প্রবর্তক সংঘ

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, সোমবার (৩০ আগস্ট) থেকে বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত চট্টগ্রামে অনাড়ম্বরভাবে তিন দিনব্যাপী জন্মাষ্টমী উৎসব উদ্‌যাপন করা হবে। সোমবার সকাল ১০টায় বিভিন্ন মঠ-মন্দির ও আশ্রমে দুস্থদের ত্রাণ বিতরণ করা হবে। এরপর জেএমসেন হলে কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন চট্টগ্রাম রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ শক্তিনাথানন্দ মহারাজ। প্রধান অতিথি থাকবেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়োমী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। প্রধান আলোচক থাকবেন অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত। বিকাল ৫টায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। প্রধান আলোচক থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। সন্ধ্যা ৭টায় মহাস্নান ও অভিষেক শেষে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সকাল থেকে ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি শেষে বিকাল ৫টায় ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন সিটি মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। প্রধান আলোচক থাকবেন সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন।

আরও পড়ুন: ইসকনের ২৬ জনের ‘কাঁধে উঠল’ প্রবর্তক সংঘের মামলা

বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) পূজানুষ্ঠান, প্রসাদ বিতরণ, শ্রীমদ্ভাগবত পাঠ, নামকীর্তনের মধ্যদিয়ে উৎসবের সমাপ্তি হবে ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জন্মাষ্টমী উদ্‌যাপন পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সুজিত কুমার বিশ্বাস, সাধন ধর, বিমল দে, লায়ন আশীষ কুমার ভট্টাচার্য্য, লায়ন তপন কান্তি দাশ, অধ্যাপক অর্পণ ব্যানার্জি, রতন আচার্য্য, সুমন দেবনাথ, শ্রীপ্রকাশ দাশ অসিত, অমিত চৌধুরী, এস প্রকাশ পাল, ডা. বিধান মিত্র, আশীষ চৌধুরী, সজল দত্ত ও নিউটন কান্তি দে।

আরবি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm