চকবাজার ‘পুলিশের নাটক’ শেষ হলো সেই টিনুকেই প্রধান আসামি করে

চট্টগ্রাম কলেজের সংঘর্ষের ঘটনায় আসামির নাম বাদ দিতে পুলিশের ২৪ ঘণ্টার নাটক শেষ হলো মামলা নিয়ে। কথিত যুবলীগ নেতা ও চকবাজারের সন্ত্রাসী নূর মোস্তফা টিনুকেই প্রধান আসামি করে মামলাটি নেয় চকবাজার থানা পুলিশ।

বুধবার (১৬ জুন) মধ্যরাতের পর থানায় মামলা করেন হামলায় আহত চট্টগ্রাম কলেজের ইংরেজি বিভাগের অনার্স শেষবর্ষের পরীক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল সায়মন। তবে মামলার বিষয়টিও পুলিশ অজ্ঞাত কারণে ‘গোপন’ রাখার চেষ্টা চালায়। গণমাধ্যমকে তথ্য দিতেও লুকোচুরি করে চকবাজার থানার পুলিশ।

এদিকে মামলায় ১২ জনকে আসামি করা হয়েছে। নূর মোস্তফা টিনুকে প্রধান আসামি, আমির উদ্দীনকে দুই নম্বর এবং জিয়াউদ্দীন আরমানকে তিন নম্বর আসামি করা হয়েছে।

এর আগে বাদির জমা দেওয়া এজাহারে ‘সন্ত্রাসী’ টিনুর নাম থাকায় মামলা না নেওয়ার অভিযোগ উঠে চকবাজার থানা পুলিশের বিরুদ্ধে। বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত দীর্ঘ ৫ ঘণ্টা থানায় অপেক্ষার পরও মামলা করতে পারেনি ভুক্তভোগী। পরে রাত ১২টার পরে নানা আলোচনা-সমালোচনার পর মামলা নেয় পুলিশ।

Yakub Group

এর আগে বুধবার (১৬ জুন) দুপুর দেড়টায় চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মল্লিক সবুজ বহিরাগতদের নিয়ে সভাপতি মাহমুদুল করিমের সমর্থকদের উপর হামলা চালায়। হামলায় আহত হন আব্দুল্লাহ আল সায়মন, কাজী মো. আব্দুল মালেক রুমি, মো. ইমনসহ সাতজন। এদের মধ্যে গুরুতর আহত সায়মন ও রুমিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত সবাই কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতির অনুসারী।

সংঘর্ষের ঘটনায় আটকরা হলেন—বহিরাগত সৌরভ সাহা ও চট্টগ্রাম কলেজের ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ছাত্র সিরাজুল ইসলাম তোরাব। আটক দুইজন কথিত যুবলীগ নেতা নূর মোস্তফা টিনুর অনুসারী।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ২২ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ১২টায় চকবাজারের কাপাসগোলা থেকে একটি পিস্তল ও পাঁচ রাউন্ড গুলিসহ নূর মোস্তফা টিনুকে গ্রেফতার করে র্যাব-৭। পরে টিনুর বাসায় অভিযান চালিয়ে একটি শটগান ও ৬৭ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের করা মামলায় টিনুকে যেতে হয় কারাগারে। দীর্ঘ ১ বছর ৪ মাস কারাভোগের পর চলতি বছর ১৮ জানুয়ারি জামিনে মুক্ত হন টিনু।

আলোকিত চট্টগ্রাম

1 মন্তব্য
  1. মাহমুদ বলেছেন

    তাদের রাজনীতির খেলার স্বীকার হলেন ‘সৌরভ শাহা’ নামক একজন নির্দোষ ছাত্র। চট্রগ্রাম কলেজে হরহামেশা বহিরাগতদের প্রবেশ, কেউ ঘুরতে যায়,কেউ বা খেলতে বা হাটতে যায়। তেমনি “Bangladesh Airforce” এর পরীক্ষা প্রস্তুতির জন্য সৌরভ নিয়মিত শরীরচর্চার জন্য চট্রগ্রাম কলেজে যেত। তাছাড়াও সে তথাকথিত টিনুর নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দিত। সেজন্য কলেজ প্রাঙ্গণে সৌরভকে দেখে ষড়যন্ত্রকারীরা তাদের অপ রাজনাতির ঢাল হিসেবে “সৌরভ” কে ফাসিয়ে দেয়, যাতে সৌরভের ফেসবুকের পোস্ট কে ব্যবহার করে তাকে টিনুর কর্মী প্রমাণ করতে পারে, অথচ তাদের মূল লক্ষ্য টিনু! মাঝখানে তাদের অপ রাজনাতির স্বীকার হয়ে নষ্ট হয়ে গেলো সাধারণ মেধাবী ছাত্র সৌরভের জীবন। নষ্ট হয়ে গেল তার পরিবারের সম্মান। সুতরাং যথাযথ বিবেচনা না করে একজন ছাত্রের উপর দোষ চাপানো যায় না। এসব নোংরা রাজনীতি বন্ধ এবং সাধারণ ছাত্র সৌরভের মুক্তির জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm