চট্টগ্রামে পুলিশের জীবন বাঁচিয়ে হাতে উঠল ‘সিএমপির সম্মাননা’

প্রতিদিনের মতো মোটরসাইকেল চালিয়ে কাজে যাচ্ছিলেন পুলিশ সার্জেন্ট মো. পারভেজ (৩৪)। মইজ্জ্যারটেক আসতেই তাঁকে ধাক্কা দেয় দ্রুতগতির একটি মিনি ট্রাক। মুহূর্তেই তিনি ছিটকে পড়েন সড়কে। আঘাত পান মাথায় ও পায়ে।

গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিতে তার এই বিপদে এগিয়ে এলেন বড়উঠান ইউনিয়নের বাসিন্দা সোহেল মো. হাবিবুল্লাহ। পারভেজকে দ্রুত উদ্ধার করে তিনি নিয়ে যান চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে। পরে চিকিৎসা নিয়ে ধীরে ধীরে সেরে উঠছেন পারভেজ।

ঘটনাটি ২৫ আগস্ট সকালের। এ মানবিকতার জন্য চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর সম্মাননা জানিয়েছেন হাবিবুল্লাহকে। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) হাবিবুল্লাহর পক্ষে সম্মাননা গ্রহণ করেন তাঁর বাবা মো. সামশুল হুদা।

আরও পড়ুন : চট্টগ্রামে শিশু অপহরণ—২০ হাজার টাকায় বেচা, পুলিশ উদ্ধার করল চাঁদপুর থেকেই

Thai Food

পারভেজ সিএমপির ট্রাফিক বন্দর বিভাগে কর্মরত ছিলেন। তিনি লক্ষ্মীপুর সদর থানার লস্করহাট এলাকার গিয়াস উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সার্জেন্ট পারভেজ সেদিন ডিউটিতে যাওয়ার সময় মইজ্জ্যারটেক এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় আহত হন। এ সময় তিনি মাথা এবং পায়ে আঘাত পান। আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালের ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করান হাবিবুল্লাহ। ঘাতক ট্রাকটি আটক করা হলেও চালক পলাতক রয়েছে।

সোহেল মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ বলেন, সেদিন সকাল থেকে অবিরাম বৃষ্টি হচ্ছিল। শাহ্ আমানত সেতু (নতুন ব্রিজ) হয়ে শহরে যাওয়ার জন্য মইজ্জ্যারটেক আসি। হঠাৎ দেখি এক পুলিশ সদস্যকে দ্রুতগতির একটি মিনি ট্রাক ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। গাড়ির ধাক্কায় তিনি ছিটকে পড়েন সড়কে। ওইসময় কেউ এগিয়ে আসেনি। অনেকে মোবাইল ফোনে ছবি তুলতে ব্যস্ত ছিল। আমি বৃষ্টির মধ্যে গাড়ি থেকে বের হয়ে দ্রুত মুমূর্ষু অবস্থায় ওনাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। দেরি হলে বড় বিপদ হতো বলে জানান চিকিৎসকরা। চিকিৎসা শেষে তিনি আল্লাহর রহমতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এটাই বড় প্রাপ্তি আমার। যদিও আমি এ সম্মাননার যোগ্য নই। তবুও অনেক ধন্যবাদ চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সকলকে।

ইমরান/ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm