‘অনলাইনে’ খোঁজ—ছেলে জানলো ৭২ ঘণ্টা আগে কুয়েতে ‘বাবার’ মৃত্যুর কথা

কাতারে ১৫ বছরের প্রবাসজীবন তসলিম উদ্দিন চৌধুরীর (৫৮)। এরমধ্যে হঠাৎ একদিন অসুস্থ হয়ে পড়েন। হাসপাতালেও ভর্তি করানো হয় তাঁকে। দীর্ঘদিন চিকিৎসার করালেও আর সুস্থ হয়ে ফিরতে পারেননি। বুধবার (১১ আগস্ট) তিনি চলে যান না ফেরার দেশে।

অথচ তাঁর মৃত্যুর খবর পরিবারের কাছে পৌঁছাতে তিনদিন সময় লেগেছে। এমনকি প্রবাসে থাকা তার ছেলে এবং আত্মীয়স্বজনরাও খবরটি জানতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত অনলাইনে তাঁর আইডি নম্বর দিয়ে খোঁজ করা হলে মৃত্যুর খবর জানা যায়।

আরও পড়ুন: করোনা কেড়ে নিল প্রবাসীর প্রাণ, সন্তানকেও দেখলেন না আর

তসলিমের বাড়ি আনোয়ারা উপজেলার চাতরী ইউনিয়নের সুজামওলা পাড়ায়। তাঁর বাবার নাম মৃত সোলায়মান চৌধুরী। ১৫ বছর ধরে কাতারে প্রবাসজীবন কাটিয়েছেন তিনি। প্রতিবছর তিনি নাড়ি টানে দেশে আসতেন। তবে করোনার কারণে গতবছর আসতে পারেননি। তিনি দুই মেয়ে ও এক ছেলের জনক।

আরও পড়ুন: ‘মৃত্যু’ শুনেই স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে ফেলে পালালো যুবক

তসলিমের ছেলে কুয়েত প্রবাসী মুহাম্মদ আরিফুল ইসলাম শনিবার আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আমার বাবা দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ সেটা জেনেছি উনার মালিকের মাধ্যমে। আমি কিছুদিন আগেও দেখে এসেছি উনাকে। দুই-এক দিন ধরে যখন কোনো খোঁজ পাচ্ছিলাম না, তখনই আমার খালাতো বোনের স্বামীকে বিষয়টি জানাই। তিনি অনলাইনে আমার বাবার আইডি নম্বর দিয়ে খুঁজে বের করলেন হাসপাতালের ঠিকানা। সেখানে গেলে চিকিৎসকরা জানান, তিনদিন আগে বাবা মারা গেছেন। বাবার মরদেহ দেশে নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

প্রবাসে কারো কাছে আমাদের কোনো মূল্যে নেই_বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন আরিফুল।

ইমরান/ডিসি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm