২২ অক্টোবর চট্টগ্রামসহ সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা গণঅনশন

আগামী ২২ অক্টোবর (শনিবার) সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা গণঅনশন পালন করবে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ।

শনিবার (১৬ জুলাই) দুপুর ৩টায় নগরের চেরাগী চত্বরে আয়োজিত সরকারি দলের নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে এ ঘোষণা দেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত।

আরও পড়ুন: ‘কাঁদছে হিন্দুরা’ চট্টগ্রাম—সিলেট থেকে কুমিল্লা—কুড়িগ্রামে সাম্প্রদায়িক হামলা

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রানা দাশগুপ্ত বলেন, সরকারি দলের নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের দাবিতে যে লড়াই, এই লড়াইয়ের অংশ হিসেবে আমি আজকের এই সমাবেশ থেকে আগামী ২২ অক্টোবর (শনিবার) সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা গণঅনশন কর্মসূচি ঘোষণা করছি। এই গণঅনশন কর্মসূচি পালিত হওয়ার পরে আমরা আবার নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করব। আমাদের নেতারা গোটা বাংলাদেশের কথা বর্ণনা করেছেন।

Yakub Group

তিনি বলেন, আমি লক্ষ্য করছি চট্টগ্রাম মহানগরীর পতেঙ্গা-কাঠগড়ের জেলেদের ওপর নির্বিচারে সন্ত্রাস চলছে। ৪০, ৪১ নম্বর ওয়ার্ডে এই সন্ত্রাসীদের অবস্থান। আমি তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করার মধ্যদিয়ে যাতে জেলে পল্লীতে আমাদের মৎস্যজীবীরা থাকতে পারেন সে ব্যবস্থা করার জন্য ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মাননীয় জেলা প্রশাসক ও মাননীয় পুলিশ কমিশনারের নিকট আবেদন জানাই। আজকের এই সমাবেশ থেকে জানতে চাই চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্র দুর্জয় বড়ুয়া দেড় মাসের মত নিখোঁজ রয়েছেন, তার সন্ধানে থানায় জিডি করা হয়েছে, কিন্তু আজ পর্যন্ত আমরা দুর্জয় বড়ুয়ার সন্ধান পাইনি। পুলিশের যারা তদন্তের দায়িত্বে রয়েছেন তাদের কাছে বিনীতভাবে অনুরোধ করি, অনতিবিলম্বে দুর্জয় বড়ুয়ার সন্ধান করে তাকে তার অসহায় বাবা-মার কাছে আপনারা ফিরিয়ে দেবেন। নতুবা চট্টগ্রামের জাতিগত সংখ্যালঘু সম্প্রদায় দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবে।

তিনি আরও বলেন, মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন বিশ্বাসের কথা ইতিমধ্যে উল্লেখ করা হয়েছে। চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার খানদীঘি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিল্টন কুমার বিকাশ দাশের ওপর হামলা করা হয়েছে। আমি প্রশাসনের কাছে আবেদন করি, অনুরোধ করি, অনতিবিলম্বে হয়রানি থেকে রক্ষায় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ সভাপতি ডা. একিউএম সিরাজুল ইসলাম, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি প্রকৌশলী দেলোয়ার মজুমদার, আবৃত্তিশিল্পী রাশেদ হাসান ও চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এএইচএম জিয়াউদ্দিন।

আরও পড়ুন: ‘জন্মাষ্টমী’—এবারও মহাশোভাযাত্রায় মানা, উৎসব হবে অনাড়ম্ভর

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ মহানগর সভাপতি প্রকৌশলী পরিমল কান্তি চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রুবেল পালের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. জিনবোধি ভিক্ষু, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শ্যামল কুমার পালিত, মহানগর সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নিতাই প্রসাদ ঘোষ, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি লায়ন আশীষ কুমার ভট্টাচার্য, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সভাপতি ইন্দু নন্দন দত্ত, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি তাপস হোড়, কাউন্সিলর পুলক খাস্তগীর, কাউন্সিলর নীলু নাগ, কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত, অর্পণ সমাদ্দার, অ্যাডভোকেট প্রদীপ চৌধুরী ও লায়ন শংকর সেনগুপ্ত।

সমাবেশে শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল নগরের চেরাগী চত্বর থেকে শুরু হয়ে লালদীঘির পাড়ে গিয়ে শেষ হয়।

আরবি/আলোকিত চট্টগ্রাম

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm