নভেম্বরেই নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি—আলোচনায় ৭ নেতা, আড়ালে ২

পাঁচ মাস আগে ঢাকঢোল পিটিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ ভার্চুয়ালি প্রথম সম্মেলন করলেও এখনো ঘোষণা করতে পারেনি কমিটি।

এ নিয়ে নগরের নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। নতুন কমিটির জন্য সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদে সাতজনের নাম জমা পড়েছে বলে জানা গেছে। এসব নেতা পদে আসতে বিভিন্ন কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব জলবায়ু কপ-২৬ সম্মেলন থেকে ফিরলেই কমিটির ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সর্বশেষ কমিটি হয়েছিল ২০০১ সালে। এরপর কেটে গেছে ২০ বছর। আলোর মুখ দেখেনি কমিটি। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় কমিটির ঘোষণার পর গত ১৯ জুন সম্মেলন দেওয়া হয় চট্টগ্রামে। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউশনে ভার্চুয়াল এই সম্মেলন শেষে দ্রুত কমিটি দেওয়ার কথা বললেও সময়ের সঙ্গে তা ঝিমিয়ে পড়ে।

জানা গেছে, শিক্ষামন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারীরাই মূলত এগিয়ে আছেন কমিটির দৌড়ে। নগরের এই দুই বলয় থেকে সমন্বয় করে ত্যাগী নেতাদের কমিটিতে স্থান দেওয়া হবে।

ইতোমাধ্যে গত জুলাইয়ে নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের একটি খসড়া কমিটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। খসড়ায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য সাতজনের নাম আছে। সেখান থেকে যাচাই-বাছাই করে দুজনকে দায়িত্ব দেওয়া হবে।

কমিটির দায়িত্বে রয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ, সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

Thai Food

আরও পড়ুন : রাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার জমি দখল, বিকালে উচ্ছেদ

তবে আপাতত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করে আংশিক কমিটি ঘোষণা হতে পারে। দুই শীর্ষপদের দৌড়ে এগিয়ে আছেন সাদেক হোসেন পাপ্পু, দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ, হেলাল উদ্দিন, আনোয়ার ইসলাম বাপ্পী, আবুল হাসনাত বেলাল, দেবাশীষ নাথ দেবু ও সরফরাজ নেওয়াজ রবিন।

এদের মধ্যে সাদেক হোসেন পাপ্পু ও দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ দীর্ঘদিন ধরে স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে শ্রম দিয়ে আসছেন। রাজনীতির জন্যই প্রাণ গেছে ফরহাদের ভাইয়ের।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু বলেন, আমরা দ্রুত কমিটি দিতে চেষ্টা করছি। সবার সঙ্গে আলোচনা করে কমিটি ঘোষণা করতে হবে। ইতোমধ্যে আমরা অন্যান্য আরো কয়েকটি কমিটি ঘোষণা করলেও জটিলতার কারণে চট্টগ্রাম নগরের কমিটি দেখেশুনে দিতে হচ্ছে। আশা করি চলতি মাসেই চট্টগ্রাম নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি ঘোষণা হতে পারে।

প্রসঙ্গত, ২০০১ সালের জুলাইয়ে অ্যাডভোকেট এইচএম জিয়াউদ্দিনকে আহ্বায়ক, কেবিএম শাহজাহান ও সালাউদ্দিন আহমদকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় কমিটি। এরপর ২০ বছরেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি পায়নি নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

সিএম/ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm