সীমিত নাকি কঠোর—সোমবার ‘লকডাউনে’ যা যা বন্ধ হচ্ছে

সারাদেশে সোমবার (২৮ জুন) থেকে ‘সীমিত পরিসরে’ লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। তবে ‘সীমিত পরিসর’ বলা হলেও এদিন থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যাচ্ছে অনেককিছুই। এরমধ্যে মার্কেট, শপিংমল ও গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

রোববার (২৭ জুন) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

করোনা ভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, আগের সব বিধিনিষেধ ও কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় ২৮ জুন সকাল ৬টা থেকে ১ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত কিছু ‘বিধিনিষেধ’ আরোপ করা হয়েছে।

বিধিনিষেধগুলো হলো:

১. সারাদেশে পণ্যবাহী যানবাহন ও রিকশা ছাড়া সব গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নিয়মিত টহলের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

২. সব শপিংমল, মার্কেট, পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদনকেন্দ্র বন্ধ থাকবে।

৩. খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁ সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খাবার বিক্রি (শুধুমাত্র অনলাইন/টেকওয়ে) করতে পারবে।

৪. সরকারি-বেসরকারি অফিস/প্রতিষ্ঠানগুলোতে শুধু প্রয়োজনীয় সংখ্যক কর্মকর্তা/কর্মচারীর উপস্থিতি নিশ্চিত করতে নিজ নিজ অফিসের ব্যবস্থাপনায় তাদের আনা-নেওয়া করতে হবে।

৫. জনসাধারণকে মাস্ক পরার জন্য আরও প্রচার-প্রচারণা চালাতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে।

এর আগে সরকার সোমবার থেকে শুরু হতে যাওয়া তিনদিনের সীমিত পরিসরের লকডাউন শেষে ১ জুলাই থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ বাস্তবায়নের কথা জানিয়েছিল।

রোববার সচিবালয়ে এক অনুষ্ঠানে ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ পুলিশ-বিজিবির পাশাপাশি সেনাবাহিনীর সদস্যরাও মাঠে থাকবেন বলে জানিয়েছেন  স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা শনাক্তের খবর জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এরপর পর্যায়ক্রমে সাধারণ ছুটি, লকডাউন, বিধিনিষেধ আরোপের পর সর্বশেষ ১ জুলাই থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

জেডএইচ

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm