সিআরবি ‘আন্দোলনের’—আওয়ামী লীগ ‘নেতাদের’ পদত্যাগ চান মাহতাব উদ্দিন

সিআরবিতে হাসপাতাল স্থাপনের বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনকে ‘উদ্দেশ্যমূলক ও হীন স্বার্থের আন্দোলন’ বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদিত প্রকল্প সিআরবি হাসপাতালের বিরোধিতাকারী যেসব আওয়ামী লীগ নেতা  ‘আন্দোলনের’ নামে বাড়াবাড়ি করছেন, তাদের আন্দোলনে যোগ দেওয়ার আগেই আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করা উচিত ছিল। তিনি ওইসব আওয়ামী লীগ নেতাদের এখনই পদত্যাগের আহ্বান জানান।

মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ পদত্যাগের এ আহ্বান জানান। ৩১ আগস্ট (মঙ্গলবার) নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আরও পড়ুন: ‘সিআরবি রক্ষা আন্দোলন’—বিস্ফোরক মন্তব্য সাংসদ মোছলেম উদ্দীনের

মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্প প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের প্রকল্প। হঠাৎ দেখলাম সিআরবি প্রকল্প নিয়ে বাড়াবাড়ি চলছে, বেশ মাতামাতি চলছে। সিআরবি রক্ষা আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টির পাঁয়তারা চালানোর চেষ্টাও চলছে। সরকারের উন্নয়নকে ব্যাহত করার অপচেষ্টাও চলছে।

তিনি বলেন, আন্দোলনের নামে যারা আজ মাঠে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের প্রকল্পের বিরোধিতা করছে তাদের আওয়ামী লীগ করার অধিকার নেই। তাদের উচিত এখনই আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করে আন্দোলন করা। তাদের মনে রাখা উচিত, ঘোলাপানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছেন তারা। সিআরবিতে হাসপাতালের বিরোধিতা করা মানেই প্রধানমন্ত্রীর বিরোধিতা।

আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এই প্রকল্প সিআরবিতেই হবে—হবে—হবেই।

আরও পড়ুন: ‘ক্ষোভে ফুঁসছে চট্টগ্রাম’ সিআরবির বুকে উঠছে কংক্রিটের উঁচু ভবন

সভায় বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, খোরশেদ আলম সুজন, সুনীল সরকার, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ, সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, যুগ্ম সম্পাদক বদিউল আলম, বন ও পরিবেশ সম্পাদক মশিউর রহমান চৌধুরী।

আলোকিত চট্টগ্রাম

2 মন্তব্য
  1. ইসমাইল বলেছেন

    আওয়ামী লীগ কারো বাপের সংঘটন না। এটা একটি দেশ ও জাতির সংঘটন। ই
    আজকে সংঘটন থেকে ব্যাক্তি বড় হওয়ার দরুন জাতির এই অবস্থা।

  2. ইসমাইল বলেছেন

    আওয়ামী লীগ কারো বাপের সংঘটন না। এটা একটি দেশ ও জাতির সংঘটন।
    আজকে সংঘটন থেকে ব্যাক্তি বড় হওয়ার দরুন জাতির এই অবস্থা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm