চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো শুরু হচ্ছে ‘এসএ গ্রুপ’ স্কোয়াশ প্রশিক্ষণ—তত্ত্বাবধানে ইরানি কোচ

এসএ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক কোনো কোচের তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রাম ক্লাবে শুরু হতে যাচ্ছে স্কোয়াশ প্রশিক্ষণ। ইরানি কোচ গোলামনিজাদ জাবিদ মহসিনের নেতৃত্বে চট্টগ্রামে সপ্তাহজুড়ে  সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত নিবন্ধিত খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। বাংলাদেশের স্কোয়াশ খেলাকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করতেই এ আয়োজন।

Thai Food

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম ক্লাবের স্কোয়াশ কোর্টে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান এসএ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সাজ্জাদ আরেফিন আলম। তিনি বলেন, একটি সুস্থ জাতি গঠনে খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই। স্কোয়াশ খেলার প্রতি তরুণদের আগ্রহ আমাদের ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত করেছে। আগামী দিনে বাংলাদেশে নতুন নতুন খেলোয়াড় গড়ে তোলা হবে।

আরও পড়ুন: ‘আলোর পথে’ ৩৩ বছরের এসএ গ্রুপ, ১৭ প্রতিষ্ঠানে জনবল নেবে আরও ১০ হাজার

তিনি আরও বলেন, স্কোয়াশ আমি নিজে খেলি। জেলা পর্যায়ে এ খেলা শুরু করতে চাই। আরও খেলোয়াড় বের করে আনতে চাই। স্কোয়াশ একদিন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে খেলে দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনতে চাই।

এসএ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড কর্মসংস্থান, সামাজিক ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে অবদান রেখে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় ভবিষ্যতেও অবদান ধরে রাখার চেষ্টা করে যাবে— যোগ করেন সাজ্জাদ।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে বিকেএসপির স্কোয়াশ বিভাগের ৬ জন খেলোয়াড় আগ্রহ দেখিয়েছে। আরও ২৪ জন খেলোয়াড় প্রশিক্ষণের জন্য নিবন্ধন করেছে। উদ্যোক্তাদের আশা ৩০ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া।

সংবাদ সম্মেলনে কোচ গোলামনিজাদ জাবিদ মহসিনকে পরিচয় করিয়ে দেন বাংলাদেশ স্কোয়াশ রেকেটস ফেডারেশনের জেনারেল সেক্রেটারি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিএম কামরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, স্কোয়াশ বাংলাদেশে অনেকটাই অপ্রচলিত এবং স্বল্প পরিচিত খেলা। সম্প্রতি আমাদের দেশের তরুণদের মধ্যে স্কোয়াশ খেলা পরিচিত এবং জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে। যার কারণে আমরা স্কোয়াশ নিয়ে কাজ করতে চাই। আমাদের দেশে স্কোয়াশ এখনও ভালো অবস্থানে নেই। গত এক বছর ধরে আমরা মাইনাসে আছি। আর নিচে যেতে চাই না।

আরও পড়ুন: করোনাকালে জেলা প্রশাসনে বিশুদ্ধ পানি দিল এসএ গ্রুপ

কামরুল ইসলাম বলেন, আমাদের স্কোয়াশ খেলার মান উন্নীত করার লক্ষ্যে এবং ভালো খেলোয়াড় তৈরির করার জন্য বিদেশি কোচ নিয়োগ করেছি। স্কোয়াশ খেলা বিশ্বের ক্রীড়া অর্থনীতির ক্ষেত্রে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। এই ইরানি কোচ আমাদের প্রশিক্ষক এবং খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণ দিবে। আমরা পর্যাক্রমে নারী এবং বয়স দভিত্তিক স্কোয়াশ টিম গঠন করবো। যারা স্কোয়াশ খেলায় আগ্রহী তাদের নিয়ে টিম গঠন করতে চাই।

ইরানি স্কোয়াশ কোচ গোলামনিজাদ জাবিদ মহসিন বলেন, আমি বাংলাদেশে এসে ছেলেদের প্রশিক্ষণ দিতে মুখিয়ে আছি। খুব ভালো লাগছে। আশা করি প্রশিক্ষণে ছেলেদের আমার সর্বোচ্চটা দিতে পারবো।

ইসি কমিটির সদস্য ইউসুফ মনসুর বলেন, বাংলাদেশে স্কোয়াশ খেলার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অবদানের জন্য আমরা বিদেশি কোচের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছি। এই আয়োজনের মাধ্যমে দক্ষ খেলোয়াড় বের করা আনা সম্ভব বলে মনে করি।বিদেশের মাটিতে খেলে খেলোয়াড়েরা দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনতে পারবে বলে আশা করছি।

চট্টগ্রাম ক্লাবের মেম্বার ইনচার্জ (স্কোয়াশ) ইমতিয়াজ হাবীব রনি বলেন, আমাদের দেশে স্কোয়াশ অন্য খেলার চেয়ে অপরিচিত। কিন্তু আস্তে আস্তে তরুণদের মাঝে জনপ্রিয়তা পেতে শুরু করেছে স্কোয়াশ। তাই আমরা বিদেশি কোচের মাধ্যমে প্রশিক্ষণের আয়োজন করেছি।

স্কোয়াশ কোচিং প্রোগ্রামটির  বেভারেজ পার্টনার এসএ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের মুসকান ড্রিংকিং ওয়াটার।

এএইচ/এসি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm