শিক্ষার্থীদের টিকা : আনোয়ারায় অভিভাবকরা দিলেন অভিযোগ, প্রশাসন জানাল সীমাবদ্ধতার কথা

আনোয়ারায় করোনার টিকা নিতে এসে ভীষণ ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এ অবস্থায় অভিযোগ করেছেন অসংখ্য অভিভাবক। তবে সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সীমাবদ্ধতার কথা।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) আনোয়ারা উপজেলা পরিষদ ঘুরে টিকা কার্যক্রমের নানা ভোগান্তির চিত্র দেখা গেছে। উপস্থিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা করেছেন নানা অভিযোগ।

সরেজমিন দেখা গেছে, টিকাকেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের উপচেপড়া ভিড়। বেশি ভিড়ের কারণে কোথাও মানা যায়নি স্বাস্থ্যবিধি। লাইনে দাঁড়িয়ে দীর্ঘ সময় অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে শিক্ষার্থীদের। অনেকে এক ঘণ্টারও বেশি সময় দাঁড়িয়ে থাকার পর পেয়েছে টিকা।

আরও পড়ুন: প্রথম দিনেই করোনার টিকা পেল মিরসরাইয়ের চার সহস্রাধিক শিক্ষার্থী

টিকা নিতে আসা জাকিয়া সুলতানা সাকি নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, প্রায় ১ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পর টিকা পেয়েছি। এত ভিড়ের মধ্যে টিকা না দিয়ে প্রতিটি স্কুলে বুথ স্থাপন করা হলে ভোগান্তি কম হতো।

জানা গেছে, উপজেলা সদরের একটি মাত্র কেন্দ্রে দেওয়া হচ্ছে টিকা। ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ২৩ হাজার শিক্ষার্থীকে ৫ থেকে ২০ কিলোমিটার দূরের উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে এসে টিকা নিতে হচ্ছে। কম বয়সী এসব শিক্ষার্থীর এত দূরে এসে টিকা নেওয়া অনেকটা কষ্টসাধ্য। ইউনিয়ন পর্যায়ে বুথ স্থাপন করা গেলে টিকা কার্যক্রম সহজ হতো বলেও মনে করেন অনেক অভিভাবক।

এদিকে শফিকুল আলম নামে একজন অভিভাবক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গণটিকার জন্য প্রতিটি ইউনিয়নে বুথ করে দিতে পারলে শিশু-কিশোরদের জন্য পারবে না কেন? গহিরা থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে গিয়ে ছোট ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে কীভাবে টিকা দেব বুঝতে পারছি না। প্রতি ইউনিয়নে একটি করে বুথ বসানোর দাবি জানান তিনি।

যোগাযোগ করা হলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পনিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু জাহিদ মো. সাইফুদ্দিন জানান, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শে ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের ফাইজার টিকা দিতে হবে। ফাইজার টিকা অবশ্যই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে রাখতে হবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফেরদৌস হোসেন জানান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর স্কুল-কলেজের ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদান কর্মসূচির আওতায় আনতে জেলা-উপজেলায় একাধিক বুথ বসিয়ে শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া শুরু করে। এই কর্মসূচির আলোকে আনোয়ারা উপজেলার ৪০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২৩ হাজার ৪৯৮ জন শিক্ষার্থীর তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: সীতাকুণ্ডে ফাইজারের টিকা পেল ৩ স্কুলের ২১৮৮ শিক্ষার্থী

জানতে চাইলে আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ জোবায়ের আহমেদ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, শিক্ষার্থীদের যে টিকা দেওয়া হচ্ছে চিকিৎসকদের মতে সেগুলো অবশ্যই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে রাখতে হবে। আনোয়ারা উপজেলার কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষ নেই। তাই উপজেলা পরিষদে এ টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, পরবর্তীতে ইউনিয়নভিত্তিক বুথ করে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

প্রসঙ্গত, সোমবার (১০ জানুয়ারি) থেকে শুরু হয় শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম । প্রথম দিন টিকা নিয়েছে উপজেলার ৩ স্কুলের ২ হাজার ১৬০ জন শিক্ষার্থী। এদিন টিকা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জোবায়ের আহমেদ। প্রথম দিন উপজেলার তিনটি প্রতিষ্ঠানের ২ হাজার ১৬০ জন শিক্ষার্থী টিকা নেয়।

ইমরান/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm