রাত পোহালেই লোহাগাড়ার ৬ ইউনিয়নে ভোট—কয়েকটি কেন্দ্রে সতর্ক দৃষ্টি

লোহাগাড়া উপজেলার ৬ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ভোটগ্রহণ রোববার। শুক্রবার রাত ১২টা থেকে প্রার্থীদের বন্ধ রয়েছে প্রচার-প্রচারণা। ইতোমধ্যে মাঠে নেমেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া সাধারণ সদস্য পদে ২২০ জন এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৬২ জন প্রার্থী রয়েছেন।

লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত বিজয় কুমার বড়ুয়া ও পুটিবিলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন মানিক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

আরও পড়ুন: আনোয়ারায় নির্বাচন—দুটিতে ভোটের আগেই জয়, ৮ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগকে চ্যালেঞ্জ

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এদিকে গতকাল শুক্রবার ছিল প্রার্থীদের প্রচারণার শেষ দিন। এদিন প্রার্থীরা সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করেছেন প্রচারণার কাজে। ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে দিয়েছেন নানা প্রতিশ্রুতি।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৬ ইউনিয়নে ৫৪টি কেন্দ্রে ভোগ্রহণ হবে। নির্বাচনি দায়িত্ব পালনে রিটার্নিং অফিসার, প্রিসাইডিং, সহপ্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার সাদ্দাম হোসেন রোমন খান আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও সফলভাবে শেষ করতে সবধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। পুলিশের মোবাইল টিমের পাশাপাশি জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে দায়িত্ব পালন করবেন।

তিনি জানান, উপজেলার পদুয়া, চরম্বা, কলাউজান, পুটিবিলা, চুনতি, বড়হাতিয়াসহ ৬ ইউনিয়নে মোট ভোটার ১ লাখ ৩২ হাজার ৫২৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৯ হাজার ৬৮১ জন এবং নারী ভোটার ৬২ হাজার ৮৪৭ জন।

আরও পড়ুন: নিরাপত্তার চাদরে ঢেকেছে চকরিয়া—পেকুয়া, ১৬ ইউনিয়নে ভোট রোববার

যোগাযোগ করা হলে লোহাগাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ জাকের হোসাইন মাহমুদ বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সবরকম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। কয়েকটি কেন্দ্রে সতর্ক দৃষ্টি রাখা হয়েছে।

সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শিবলী নোমান বলেন, নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্পন্ন করতে পুলিশ প্রশাসন সর্বদা প্রস্তুত। নির্বাচনি কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কোনো সুযোগ নেই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবীব জিতু বলেন, নির্বাচনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনে কেউ যাতে কোনোরকম অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে সে ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

সাত্তার/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm