রাতের আঁধারে ফসলি জমির মাটি কাটতে গিয়ে ৩ জন ধরা

আনোয়ারায় ফসলি জমি থেকে মাটি কাটার অপরাধে তিন ব্যক্তিকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

শনিবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. তানভীর হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

আরও পড়ুন: প্যানেল চেয়ারম্যানের আড়ালে ইয়াবার ব্যবসা করেন সোনা মিয়া, ‘বড়’ চালানসহ ধরা

জানা গেছে, উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নে ফসলি জমি থেকে মাটি কাটার অপরাধে পৃথক অভিযানে তিন ব্যক্তির কাছ থেকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এর আগে গত রোববার (৩ এপ্রিল) বিকালে উপজেলার বারশত ইউনিয়নের সিইউএফএল এলাকায় সরকারি খাস জমি থেকে মাটি কাটায় মো. সুমন নামে এক ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. তানভীর হাসান চৌধুরী আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ফসলি জমি থেকে রাতের আঁধারে অবৈধভাবে স্কেভেটর দিয়ে মাটি কাটার খবর পেয়ে পরৈকড়া, চাতরী ও বারখাইন ইউনিয়নের মো. আব্দুল মান্নান, মো. মাহবুবুল ইসলাম ও মো. জাবেদকে ৫০ হাজার টাকা করে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: মাকে ঘুমিয়ে রেখে শিশুকে নিয়ে পালাচ্ছিল চাচা, ধরা খেল বাসেই

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমজান হায়দার বলেন, ফসলি জমির উপরিভাগের ছয় থেকে আট ইঞ্চির মধ্যে মাটির জৈব উপাদান থাকে। সেই মাটি কাটা হলে জৈব উপাদান চলে যায়। জৈব উপাদান তৈরি হতে সময় লাগে ১০০ বছরের মতো। ফসলি জমির মাটি কাটা বেআইনি। মাটিখেকোদের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার করতে হবে।

যোগাযোগ করা হলে আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ জোবায়ের আহমেদ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ফসলি জমির মাটি কাটার দায়ে বেশ কয়েকজনকে জরিমানাসহ স্কেভেটর জব্দ করা হয়েছে। যারা সরকারি জমি দখল করে মাটি কেটে বিক্রি করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইমরান/আরবি

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm