বিদ্যুতের শকে হত্যা—হাতিকে টুকরো টুকরো করে দেওয়া হলো মাটিচাপা

কক্সবাজারের রামুতে একটি বন্য হাতির খণ্ড-বিখণ্ড দেহ উদ্ধার করেছে বন বিভাগ। এ ঘটনায় জড়িত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলা করা হয়েছে বন আদালতে।

মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) সকালে রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের মির্জা আলীর দোকান সংলগ্ন পাহাড়ি এলাকার ধানক্ষেত থেকে হাতির খণ্ড-বিখণ্ড দেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয় নজির আহমদ (৭০) নামে এক বৃদ্ধকে। তিনি রামুর খুনিয়াপালং ইউনিয়নের মির্জা আলীর দোকান এলাকার বাসিন্দা।

আরও পড়ুন: ‘ক্ষুধার জ্বালা’—পাহাড় থেকে নেমে এলো ১৯ হাতি

জানা যায়, সোমবার রাতে রামুর খুনিয়াপালং ইউনিয়নের মির্জা আলীর দোকানসংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় স্থানীয় ধানক্ষেতে ৫-৬টি বন্য হাতি দলবেধে খাবার খেতে নামে। এ সময় ধানক্ষেতের মালিক নুরুল ইসলাম ও তার স্বজনরা হাতিগুলো তাড়ানোর চেষ্টা চালায়।

একপর্যায়ে তারা হাতিগুলোকে বিদ্যুতের শক দেন। এতে একটি হাতি ঘটনাস্থলে মারা যায়। পরে মৃত হাতিটিকে টুকরো ‍টুকরো করে ধানক্ষেতে মাটিচাপা দেওয়া হয়।

বন বিভাগের ধোয়াপালং রেঞ্জ কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আজ (মঙ্গলবার) সকালে খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (ভূমি) রিগ্যান চাকমার নেতৃত্বে বন বিভাগের কর্মীরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পরে হাতিটির মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: রোহিঙ্গারা ভাসানচর ছাড়ছে দলে দলে, দুই কারণে ‘স্টপেজ’ মিরসরাই

এ ঘটনায় ধোয়াপালং রেঞ্জ কর্মকর্তা বাদী হয়ে রামু থানায় জিডি করেন। এছাড়া ৮ জনকে আসামি করে কক্সবাজার বন আদালতে মামলা করেন।

বলরাম/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm