তসবি হাতে ধর্মীয় আলোচনা, মাইক্রোতে উঠলেই সর্বনাশ

চট্টগ্রাম-ফেনী মহাসড়কে ডাকাতি ও অপহরণ সিন্ডিকেটের মূল হোতা, হত্যাসহ ডজন মামলার আসামি সরোয়ার হোসেন ওরফে জনিকে ৩ সঙ্গীসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৭।

রোববার (১৬ জানুয়ারি) রাতে পাহাড়তলী উত্তর কাট্টলী খেজুরতলী জাইল্যাপাড়া ব্রিজের কাছে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন- মো.সরোয়ার ওরফে জনি ওরফে মনু (৩৪), মো. রিপন (২২) ও তসলিমা বেগম (৩৬)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১টি দোনলা বন্দুক, ২টি এলজি ও ৪ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন: পূর্ব থেকে পশ্চিমে যাওয়ার মাঝেই বৃদ্ধার সর্বনাশ

বিষয়টি নিশ্চিত করে র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার আলোকিত চট্টগ্রামকে জানান, একটি চক্র দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রাম-ফেনী সড়কে ডাকাতি ও অপহরণ করে আসছে—এমন তথ্যের ভিত্তিতে নজরদারি শুরু করি। একপর্যায়ে রোববার রাতে পাহাড়তলী থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তিনজনকে গ্রেপ্তার করি। আইনানুগ প্রক্রিয়া শেষে তাদের সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়।

তিনি আরও জানান, আটকরা মাইক্রোবাস ভাড়া করে যাত্রীদের অপেক্ষায় থাকতেন। গাড়িতে কেউ তসবি পড়তেন, কেউ থাকতেন ভদ্রবেশে। যাত্রীদের বিশ্বাস করানোর জন্য যা করা দরকার তারা তাই করতেন গাড়িতে উঠানোর জন্য। পরে গাড়ি ছাড়ার পর বিভিন্ন ধর্মীয় আলোচনা শুরু করতেন। একপর্যায়ে সুযোগ বুঝে টার্গেট যাত্রীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সর্বস্ব কেড়ে নিতেন। এরপর তাদের আত্মীয়-স্বজনদের ফোনে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিকাশের মাধ্যমে ৫০ হাজার থেকে লাখ টাকা আদায় করতেন। শেষে নির্দিষ্ট একটা জায়গায় যাত্রীদের ফেলে দিয়ে পালিয়ে যেতেন।

এএইচ/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm