তাবিজে কাজ হয়নি—আংটিতেও, রাতে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে বৈদ্যকে কোপাল যুবক

লামায় সুনীল আচার্য্য (৬৫) নামের এক বৈদ্যকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে এক যুবক। পরে ওই বৈদ্যকে উদ্ধার করে প্রথমে লোহাগাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শনিবার (২ এপ্রিল) রাত আনুমানিক ১টার দিকে উপজেলার আজিজনগর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের হরিণমারা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন: তাবিজেও মন গলেনি প্রেমিকার, বৈদ্যকে কোপাতে হাত কাঁপেনি প্রেমিক যুবকের

আহত ব্যক্তি চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চুনতী ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ হিন্দুপাড়ার মৃত সুধীর আচার্য্যের ছেলে। তিনি ওই এলাকায় বান-টোনার কাজ করতেন।

এদিকে ঘটনায় পর আহত ব্যক্তির মেয়ে বাদী হয়ে লামা থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এরপর মামলার প্রধান আসামি মো. ফারুককে (৩২) গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ফারুক উপজেলার আজিজনগর ইউপির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের হরিণমারা এলাকার আবু হানিফের ছেলে।

এ বিষয়ে আজিজনগর ক্যাম্প ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শামীম শেখ বলেন, তাবিজ বা বানটোনা কেটে দেওয়ার কথা বলে আসামির কাছ থেকে প্রায় দেড় বছর আগে ১৭ হাজার টাকা নেন সুনীল আচার্য্য। পরে সপ্তাহখানেক আগে আসামিকে একটি আংটি দিয়ে আরও ৭ হাজার টাকা নেন তিনি । কিন্তু আংটিতে কাজ না হওয়ায় শনিবার রাতে তাকে পাহাড়ে ডেকে নিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায় ফারুক।

আরও পড়ুন: খুন—তাবিজে কাজ হয়নি, যুবক এলোপাতাড়ি কোপালেন নারী বৈদ্যকে

সুনীল আচার্য্যের মেয়ে সুমী আচার্য্য বলেন, শনিবার বিকেলে ফোনে এক লোক কাজের কথা বলে বাবাকে আজিজনগর ডেকে নিয়ে যান। পরদিন (রোববার) সকালে আজিজনগর ফরেস্ট অফিস সংলগ্ন বশিরের দোকান এলাকায় আহত অবস্থায় বাবা পড়ে ছিলেন। স্থানীয়রা খবর দিলে সেখান থেকে উদ্ধার করে বাবাকে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে যাই।

যোগাযোগ করা হলে লামা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদুল ইসলাম আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলার পর আসামিকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ইলিয়াছ/আরবি

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm