বিশাল গাছ ভেঙে তছনছ ৪ দোকান-বসতঘর, দায় কার?

রাঙামাটি শহরের ফরেস্ট কলোনি এলাকায় বিশালাকার গাছ ভেঙে পড়েছে দোকানসহ ৪টি বসতঘরের ওপর। এতে ঘরের বাসিন্দারা প্রাণে বাঁচলেও বিধ্বস্ত হয়ে গেছে তাদের মাথা গোজার ঠাঁই।

বনবিভাগের রেস্টহাউসের পেছনে ফরেস্ট কলোনি সড়কে মঙ্গলবার (৮ জুন) ভোর ৬টায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় নিঃস্ব হয়ে যাওয়া ইলেকট্রনিক্স সরঞ্জামের দোকানি শহিদুল আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, প্রতিদিনের মতো সোমবার রাতে দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যাই আমি। মঙ্গলবার সকালে খুলতে এসে দেখি দোকানটি সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। আমার প্রায় লাখ টাকার মালামাল নষ্ট হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিক ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বন বিভাগের বড় বড় দুটি গাছ দীর্ঘদিন ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। বার বার বলার পরও বন বিভাগ গাছগুলো কাটেনি। পার্বত্য চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগের পেছনে আরো কয়েকটি বিশাল গাছ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে।

দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) মো. বোরহান উদ্দিন মিঠু। বন বিভাগকে ডেকে গাছটি দ্রুত কেটে রাস্তা পরিস্কার করতে এবং ঝুঁকিপূর্ণ অপর গাছগুলোও দ্রুত কাটার পদক্ষেপ নিতে বনবিভাগকে অনুরোধ জানান।

ক্ষতিগ্রস্ত দোকান ও বসতঘরের মালিক রহমত উল্লাহ জানান, ফজরের নামাজ পড়ে বের হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই বিকট শব্দে বিশালাকার গাছটি দোকান ও বাসাগুলোর ওপর আছড়ে পড়ে। এ সময় দোকানের ভাড়াটিয়ারা অন্যত্র ছিলো এবং বাসার ৪ রুমের মধ্যে দুই রুমে মানুষ থাকলেও আল্লাহর অশেষ রহমতে তারা প্রাণে বেঁচে যায়। ঘরগুলো সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়ে গেছে।

বনবিভাগের গাফেলতির কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে দাবি করে রহমত বলেন, সিএফ থেকে শুরু করে বিভাগীয় বন কর্মকর্তাদের সকলকে এনে আমি তাদের অফিসের পেছনের ঝুঁকিপূর্ণ ৫টি গাছ দেখিয়েছিলাম। তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলেও গাছগুলো কাটেনি।

সরেজমিন দেখা গেছে, বনবিভাগের সদর রেঞ্জ অফিসের পেছনে সীমানা দেয়াল ফেটে বিশালাকার আরো একটি গাছ ঝুকে রয়েছে, এটির গোড়ায় মাটি নেই বললেই চলে। ফলে যে কোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা।

এ বিষয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. রফিকুজ্জামান শাহ বলেন, ইতোমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ গাছগুলো সম্পর্কে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে বনবিভাগ।

এছাড়া শহরের ভেদভেদী রাঙামাটি-চট্টগ্রাম প্রধান সড়কের ফুটপাতে অবস্থিত একটি অর্ধমৃত বড় গাছ ভেঙে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

মানিক/ডিসি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm