‘অদ্ভুত কাণ্ড’—৯১ বছরের বৃদ্ধার ‘বয়স্ক ভাতা’ ইউপি সদস্যের ছেলের পকেটে

আনোয়ারার ৯১ বছরের বৃদ্ধা অরণ্য বালা দে। সরকার থেকে বয়স্ক ভাতা দেওয়া হয় স্থানীয় বোয়ালগাঁও গ্রামের বিধবা এই নারীকে। তবে অরণ্যের সরকারি এই টাকা চলে যাচ্ছে আনোয়ারা সদর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত (ইউপি) সদস্য মিনু রানী দত্তের ছেলে নিরোৎপল দত্তের (৩৫) মুঠোফোনে!

এ অভিযোগ খোদ বিধবা বৃদ্ধা অরণ্য বালা দে’র। আলোকিত চট্টগ্রামের অনুসন্ধানে এর সত্যতাও পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, ওই বৃদ্ধা ছয় মাসের বয়স্ক ভাতার টাকা না পেলে সমাজসেবা অফিসে যান। সেখানে জানতে পারেন তাঁর জাতীয় পরিচয়পত্রের বিপরীতে ০১৮২২৩০৮৬০৫ নম্বরে নগদ অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। সেই অ্যাকাউন্টে টাকা জমা হচ্ছে। পরে বৃদ্ধার নাতি মিটন দত্ত ওই নাম্বারে যোগাযোগ করে জানতে পারেন অ্যাকাউন্টটি স্থানীয় সংরক্ষিত ইউপি সদস্য মিনু রাণী দত্তের ছেলে নিরোৎপল দত্তের ।

মিটন দত্ত জানান, বয়স্ক ভাতার টাকা না এলে ঠাকুরমাকে নিয়ে সমাজসেবা অফিসে যোগাযোগ করি। এরপর জানতে পারি স্থানীয় মহিলা ইউপি সদস্যের ছেলের অ্যাকাউন্টে টাকা জমা হয়েছে। যোগাযোগ করলে তারা টাকা ফেরত দেবে বলে জানায়। কিন্তু এখনো টাকা পাইনি।

এদিকে সংরক্ষিত ইউপি সদস্যা মিনু রাণী দত্ত তাঁর ছেলের অ্যাকাউন্টে টাকা নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ‘অরণ্য বালার ‘নগদ অ্যাকাউন্টের’ কোনো মোবাইল ফোন না থাকায় আমার ছেলের অ্যাকাউন্ট নম্বর সমাজসেবা অফিসে দেওয়া হয়েছে। অ্যাকাউন্টে তিন হাজার টাকা এসেছে। ওই টাকা ফেরত দিয়ে দেওয়া হবে।’

যোগাযোগ করা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ জোবায়ের আহমেদ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ‘একজনের টাকা অন্যজনের অ্যাকাউন্টে যাওয়ার নিয়ম নেই। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ইমরান/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm