লঙ্কাকাণ্ড—বিজয় মেলার শেষমুহূর্তে চাঁদাবাজি-মারামারি, ৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ

নগরের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে মাসব্যাপী মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার শেষদিনে দফায় দফায় মারামারি ও জয়বাংলা স্টোর (২৩৩ নম্বর স্টল) থেকে ৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে ঘটনার বিষয়ে কিছুই জানে না থানা পুলিশ।

রোববার (২ জানুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে মেলা কমিটি ও কাজীপাড়ার স্থানীয়দের সঙ্গে কয়েক দফা মারামারির ঘটনা ঘটে। ঘটনার একপর্যায়ে জয়বাংলা স্টোর (২৩৩ নম্বর স্টল) থেকে ৫ লাখ টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায় দুবৃর্ত্তরা।

আরও পড়ুন: ওসি সেজে চাঁদাবাজি—পুলিশের ফাঁদে ধরা পড়ল ৩ চাঁদাবাজ

ঘটনাস্থলে পুলিশের অবস্থান-আলোকিত চট্টগ্রাম

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পহেলা ডিসেম্বর থেকে নগরের আউটার স্টেডিয়াম মাঠে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের উদ্যোগে মাসব্যাপী বিজয় মেলা শুরু হয়। মেলা আনুষ্ঠানিকভাবে গত শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) শেষ হয়। তবে মেলায় আসা স্টল মালিকদের মালামাল ও জিনিসপত্র সরিয়ে নিতে বাড়তি একদিন সময় দেওয়া হয়।

এদিন সকাল থেকে স্টল মালিকরা মালামাল সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু করে। এ সময় হঠাৎ মেলা কমিটির ভলেন্টিয়ার ও কাজীপাড়ার স্থানীয় কিছু যুবকের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে মারামারি লাগে।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সকাল থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত তিন দফা মারামারির ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার একপর্যায়ে জয়বাংলা স্টোর (২৩৩ নম্বর স্টল) থেকে ৫ লাখ টাকা ছিনতাই করা হয়। ঘটনার পর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে ঘটনাস্থলে।

আরও পড়ুন: চাঁদাবাজি—‘ডিবি পুলিশ পরিচয়ে’ ব্যবসায়ীর দেড় লাখ টাকা নিয়ে গেল ৩ যুবক

এদিকে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার শেষদিকে এসে স্থানীয় কিছু যুবক চাঁদা দাবি করে আসছিল। আমরা চাঁদা দিতে রাজি না হলে তারা আমাদের ওপর ক্ষেপে যায়। আজকে আমরা মালামাল সরিয়ে নিতে গেলে স্থানীয় কিছু যুবক মারামারির ঘটনা ঘটায়। সকাল থেকে তিন দফা মারামারি হয়। মারামারির একপর্যায়ে তারা জয়বাংলা স্টোর ২৩৩ নম্বর স্টল থেকে ৫ লাখ টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। বিষয়টি মেলা কমিটিকে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নেজাম উদ্দীনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ঘটনার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। আপনার (প্রতিবেদকের) কাছ থেকে প্রথম শুনলাম। এ নিয়ে থানায় কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এএইচ/আরবি

1 মন্তব্য
  1. মেহমেদ ইমু বলেছেন

    সংবাদের সত্যতা ও যাচাই করা দরকার। ৫লাখ টাকা লুট করার ঘটনা সত্য কিনা। সেই সাথে মেলা কমিটিকে বিতর্কিত করতে কিংবা কমিটির কর্মকর্তাদের সাথে সাথে বিজয় মেলার ও ইমেজ নষ্ট করতে এই ঘটনা খতিয়ে দেখা হোক। মনে হচ্ছে মাসুদের নোংরামির একটা অংশ।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm