‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে পর্যবেক্ষণ করা হবে মাছ ধরার ট্রলার’

‘এ বছর কক্সবাজারে অতিরিক্ত দুই লাখ মেট্রিক টন মাছ বেশি উৎপাদন হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণ, সমুদ্রদূষণসহ নানা কারণে সাগরে মাছের সংখ্যা কমে যাচ্ছে।’

শনিবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে কক্সবাজার জেলা মৎস্য অফিসের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। ‘বেশি বেশি মাছ চাষ করি, বেকারত্ব দূর করি’-এ শ্লোগানে কক্সবাজারে শুরু হয়েছে সাতদিনব্যাপী জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ।

আরও পড়ুন: মাছ রপ্তানি করেই ৪ হাজার ২৫০ কোটি টাকা আয় সীতাকুণ্ডে

সংবাদ সম্মেলনে নানা তথ্য তুলে ধরেন কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা খালেকুজ্জামান বিপ্লব। তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার ট্রলারগুলো নিয়ন্ত্রণে আনতে জরিপ কাজ চলছে। আগামী ২০২২ সালের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট থেকে এসব ট্রলারগুলোকে নিয়ন্ত্রণ ও পর্যবেক্ষণ করা হবে। বঙ্গোপসাগরে এ পর্যন্ত ৪৩০ প্রজাতির মাছের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট কক্সবাজারের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শফিকুর রহমান, আঞ্চলিক মৎস্য কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তারাপদ চৌহান, এডিবি হ্যাচারি কক্সবাজারের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান। সংবাদ সম্মেলনে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন করেন মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা বিমল জ্যোতি চাকমা।

শনিবার থেকে শুরু মৎস্য সপ্তাহ শেষ হবে ৩ সেপ্টেম্বর। সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন স্থানে প্রচারণা, আলোচনা সভা, পুরস্কার প্রদান, পোনা মাছ অবমুক্তকরণ, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী, মাটি পরীক্ষা করা, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী, উপকরণ বিতরণ ও মতবিনিময় সভা।

বলরাম/ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm