চট্টগ্রাম আদালত ভবনে ১২ ফুটের বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল

চট্টগ্রাম আদালত ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে ১২ ফুটের বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ৩ টায় প্রধান অতিথি হিসেবে বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল উদ্বোধন করেন চট্টগ্রামের সিনিয়র জেলা জজ মো. ইসমাইল হোসেন।

এ সময় সিনিয়র জেলা জজ মো. ইসমাইল হোসেন বলেন, গাঙ্গেয় বদ্বীপে একটি মিশ্র জনগোষ্ঠী যখন সাম্রাজ্যবাদী ও উপনিবেশবাদীদের চরম শোষণ ও বঞ্চনার শিকার, স্বাধীনতা ও মুক্তিকামী সাড়ে সাত কোটি মানুষের সকল প্রচেষ্টা, আন্দোলন ও বিদ্রোহ একের পর এক ব্যর্থ, ঠিক তখনি বাঙালি জাতিসত্তার প্রতিষ্ঠাতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীনতা সংগ্রামের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম ও বেড়ে ওঠা। যাঁর অকুতোভয় নেতৃত্ব, আকাশসম ব্যক্তিত্ব, মেধা ও দক্ষতা সমস্ত জাতিকে একসূত্রে গেঁথে স্বাধীনতার লাল সূর্যকে ছিনিয়ে আনার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছিল। সেই মহানায়ক এবং মহাবীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চিন্তা, চেতনা ও স্বপ্নকে আমাদের মননে ও অন্তরে সযত্নে লালন করি। বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল স্থাপন তারই একটি ছোট বহিঃপ্রকাশ।

আরও পড়ুন: চিকিৎসক স্ত্রীর মামলায় পুলিশ স্বামীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

Thai Food

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু যেমন আমাদের একটি দেশ, একটি পতাকা, একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র উপহার দিয়েছেন, ঠিক একইভাবে তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্ব, নিষ্ঠা ও অদম্য প্রচেষ্টা দ্বারা দেশকে উন্নত থেকে উন্নততর পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আজ আমদের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ১০০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। জিডিপির আকার ৩২৫ বিলিয়ন ডলার। গড় আয়ু ৭৩ বছর। শিশুমৃত্যু ৩০ ভাগের নিচে এবং মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষিতের হার ৭৪ শতাংশ।

বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দেশের সব জেলা জজ, সিজিএম, এবং সিএমএম আদালত প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপনের আহ্বান জানান তিনি

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বার কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক এইচ এম জিয়াউদ্দিন। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বার কাউন্সিলের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাইমুল হক চৌধুরী, সাবেক বার কাউন্সিলর সদস্য অ্যাডভোকেট বাবুল হোসেন, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটসহ বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

প্রসঙ্গত, ১২ ফুট উঁচু ও ৮ ফুট প্রস্থের ম্যুরালটি তৈরি করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কাজল দেবনাথ। এতে সার্বিক সহযোগিতা করেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ শেখ ছামিদুল ইসলাম এবং যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ মো. খাইরুল আমিন।

এএইচ/আরবি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm