ভাঙা মঞ্চের নিচেই বক্তব্য দিলেন বিএনপি নেতারা, ‘ভুয়া ভুয়া’ চিৎকারের পর সংঘর্ষ

বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে ডাকা সমাবেশে মঞ্চ ভেঙে পড়ে গেলেন বিএনপি নেতারা।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) কর্ণফুলীর মইজ্জ্যারটেক এলাকার সিডিএ আবাসিক মাঠে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যের শুরুতেই মঞ্চ ভেঙে পড়েন অতিথিরা। তবে এ ঘটনায় কেউ আহত হননি।

শেষপর্যন্ত ভাঙা মঞ্চের নিচে দাঁড়িয়েই বক্তৃতা দিতে দেখা গেছে বিএনপি নেতাদের।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, সাবেক মন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। প্রধান বক্তা ছিলেন চিফ হুইপ জয়নাল আবেদীন ফারুক।

আরও পড়ুন : কক্সবাজারে ভিন্ন স্থানে বিএনপির সংক্ষিপ্ত সমাবেশ—পুলিশি বাধায় পণ্ড

দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ খানের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহাবুবর রহমান শামীম, সাবেক সাংসদ সরওয়ার জামাল নিজাম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, সহসাংগঠনিক সম্পাদক জালাল উদ্দিন মজুমদার, হারুনুর রশিদসহ চট্টগ্রাম বিভাগের জেলা-উপজেলা বিএনপির সকল ইউনিটের নেতারা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বেগম জিয়া খুবই অসুস্থ। তিনি সুচিকিৎসার অভাবে দিন দিন মৃত্যুর সম্মুখীন হচ্ছেন। সরকারের উচিত দ্রুত তাঁকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানো। তা নাহলে দেশে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

তিনি আরো বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই না, মুক্ত করেই আনব। সরকার বেগম জিয়াকে নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র করছে। দেশের জনগণ সরকারের এই ষড়যন্ত্র রুখে দেবে। আমরা দ্রুত বেগম জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার ব্যবস্থা চাই।

দেশবাসী ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে অবৈধ সরকারকে উৎখাত করবে বলে হুশিয়ারি দেন তিনি।

এ সময় প্রধান অতিথি গণআন্দোলনের আগে বেগম জিয়া এবং তারেক রহমানসহ সকল বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।

এর আগে সাবেক সাংসদ সরওয়ার জামাল নিজাম বক্তব্য দিতে আসলে সংগঠনের নেতাকর্মীরা ‘ভুয়া ভুয়া’ চিৎকার করে উঠলে তিনি আর বক্তব্য দেননি।

পরে বিএনপির দুই গ্রুপের সংঘর্ষে সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। এ সময় কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। তবে তাৎক্ষণিক আহতদের নাম পাওয়া যায়নি। পুলিশ ও ডিবি এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, আহতদের উদ্ধার করে মেডিকেল নিয়ে যাওয়া হয়েছে। টহল পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

ইমরান/ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm