প্রধানমন্ত্রী শুধু স্বপ্ন দেখান না, বাস্তবায়নও করেন : পোর্টসিটিতে উপমন্ত্রী শামীম

পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম বলেছেন, ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে ডিজিটাল বাংলাদেশের কথা বলা হলে অনেক রাজনৈতিক দল এই কথা নিয়ে ব্যঙ্গ করেছিলেন। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে গড়ে তোলা ডিজিটাল বাংলাদেশ কোভিড মোকাবেলার মতো অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে তার কার্যকারিতা দেখিয়ে দিয়েছেন।

শনিবার (২১ মে) সকালে পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অডিটোরিয়ামে নবাগত গ্রীষ্মকালীন ব্যাচের নবীনবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন ।

আরও পড়ুন: অনলাইন ক্লাসে দেশে ষষ্ঠ হয়েছে পোর্টসিটি : পানিসম্পদ উপমন্ত্রী

উপমন্ত্রী বলেন, আমরা যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তাম তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে দু-একটা কম্পিউটার থাকত। আমাদের সবাইকে সেখানে অজু করার মতো গ্লাভস পরে যেতে হতো। এখন সবার হাতে হাতে মোবাইল, সেই মোবাইল হচ্ছে কম্পিউটার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এখন জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, স্বাস্থ্যকর্মীসহ সবার সঙ্গে নিয়মিত বৈঠক করেন অনলাইনে। অনলাইনে ক্লাস করা সম্ভব হয়েছে। কোভিড পরিস্থিতিতে ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাজীবন ব্যাহত হয়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শুধু স্বপ্ন দেখেন না, তিনি স্বপ্ন দেখান এবং সেই স্বপ্নের বাস্তবায়নও করেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ এর উদাহরণ।

Yakub Group

পোর্ট সিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার মান নিয়ে উপমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় করতে চাওয়ার কথা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে জানালে তিনি অনুমতি দিয়েছিলেন। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শুরু থেকেই প্রধান এবং একমাত্র আলোচ্য বিষয় ছিল ভালো মানের পড়াশোনা। তাই আমাদের শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রেও আমরা শুরু থেকে স্বচ্ছ ছিলাম। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষকের সবাই প্রথম বিভাগের। এমনকি আমাদের কিছু শিক্ষক রয়েছেন যারা শুধুমাত্র চট্টগ্রামে নয় বরং প্রফেসর হিসেবে সারাদেশেই সুপরিচিত।

আরও পড়ুন: পোর্ট সিটি ইউনিভার্সিটিতে কক্সবাজার স্টুডেন্ট’স অ্যাসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬৭ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে রত্নগর্ভা বেগম আশরাফুন্নেসা ফাউন্ডেশন থেকে বিভিন্ন বিভাগে বৃত্তি দেওয়া হয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ব্যাচের ৫ জন কৃতী শিক্ষার্থী ও ১২ জন প্রতিষ্ঠাকালীন শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সম্মাননা স্মারক ও ক্রেস্ট দেওয়া হয়। এছাড়া শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে পরিবেশিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. নূরুল আনোয়ারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজ সদস্য অধ্যাপক ড. এম মুজিবুর রহমান, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, মো. মিজানুর রহমান, মো. আলী আজম স্বপন, ডা. জাহানারা আরজু ও রেজিস্ট্রার ওবায়দুর রহমান।

আইজেএন/আরবি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm