‘পুলিশ নিহত’—থামাতে সংকেত দেখেই বেপরোয়া মাইক্রো ২ পুলিশের ওপর

বেপরোয়া গতির মাইক্রোবাসের চাপায় এক পুলিশ কনস্টেবল নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরেক কনস্টেবল। এ ঘটনায় ঘাতক মাইক্রোবাসটি আটক করা গেলেও চালক পালিয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টায় সাতকানিয়া উপজেলার কালিয়াইশ ইউনিয়নের পূর্বকাটগড় দোহাজারী হাইওয়ে থানার সামনে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে হাইওয়ে থানা চেকপোস্টে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত পুলিশ কনস্টেবলের নাম মো. রাব্বি ভূঁইয়া (২৬)। তিনি নরসিংদী জেলার পলাশ থানার মালতী গ্রামের মোজাম্মেল ভূঁইয়ার ছেলে। আহত আরাফাত হোসেন (২৯) নোয়াখালীর আবদুল মান্নানের ছেলে।

আহত পুলিশ কনস্টেবল আরাফাতকে দোহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আজ (বৃহস্পতিবার) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার কালিয়াইশ ইউনিয়নের পূর্বকাটগড় দোহাজারী হাইওয়ে থানার সামনের মহাসড়কে হাইওয়ে থানা চেকপোস্ট বসিয়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এ সময় চট্টগ্রামমুখী বেপরোয়া গতির যাত্রীবাহী একটি মাইক্রোবাসকে ( চট্ট মেট্রো চ ১১-৫২২৫) থামাতে সংকেত দিলে চালক গাড়ি না থামিয়ে প্রথমে কনসস্টেবল আরাফাত ধাক্কা দেয়। পরে থামাতে কনস্টেবল রাব্বি ছুটে গেলে তাকে চাপা দিয়ে চলে যায়। এতে ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান তিনি।

খবর পেয়ে জনতা ধাওয়া করে দোহাজারী পৌর এলাকা থেকে ঘাতক মাইক্রোবাসটিকে আটক করে। তবে এ সময় চালক দ্রুত সটকে পড়ে। এর আগে ঘাতক মাইক্রোবাসটি অপর একটি গাড়িকে ধাক্কা দেয়।

পুলিশ জানায়, ঘাতক মাইক্রোটি কক্সবাজার শহরের কলাতলী এলাকা থেকে অবৈধভাবে যাত্রী নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে যাচ্ছিল।

থানা সূত্রে জানা যায়, নিহত রাব্বি ২০১৯ সালে দোহাজারী হাইওয়ে থানায় যোগ দেন। দুই বছর আগে তিনি বিয়ে করেন। এরপর থেকে তিনি পরিবার নিয়ে দোহাজারী হাইওয়ে থানার পাশে বসবাস করতেন। নিহত রাব্বির ৯ মাস বয়সের এক কন্যা সন্তান আছে।

দোহাজারী হাইওয়ে থানার ওসি আবদুর রব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ঘাতক মাইক্রোটিকে আটক করা হয়েছে। চালককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে । এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

দিদারুল/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm