‘পরকীয়ায় বাধা’—ক্ষিপ্ত স্ত্রী দড়িতে বেঁধে পেটালেন স্বামীকে, বৌ-ছেলেকে নিয়ে গেল পুলিশ

সাতকানিয়ায় স্ত্রীর পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় নির্যাতনের শিকার হয়েছেন স্বামী আবুল হোসেন ওরফে আবু ভাণ্ডারী (৫৫)।

কালিয়াইশের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ম্যাইঙ্গাপাড়ায় সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাত ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আবুল হোসেনকে তাঁর স্ত্রী ও সন্তান দড়ি দিয়ে বেঁধে মারধর করে। এ ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ স্ত্রী শাহিন আকতার ও ছেলে খাইরুল এনামকে আটক করে।

আরও পড়ুন: ‘নির্যাতনের চিহ্ন’ পেল পুলিশ, তাস খেলার ৭০ টাকার জন্য যুবক খুন

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, আবু ভাণ্ডারীর স্ত্রী শাহিন আকতারের সঙ্গে ধর্মপুর ইউনিয়নের আলমগীর চৌধুরী বাড়ির মৃত ছাবের আহমদের ছেলে আবদুল কাদের ওরফে কাদেরগ্যার পরকীয়ার চলছিল। কয়েকদিন আগে গোয়ালঘরে তাদের আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন আবু ভাণ্ডারী। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে বিচার দেন তিনি।

পরে কালিয়াইশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার মো. মহিউদ্দিন ও শাহিন আকতারের চাচাতো ভাই নুরুল কবির বাবুসহ কয়েকজন মিলে বিষয়টি মীমাংসা করে দেন। বিচারে আবু ভাণ্ডারীর বাড়িতে আর কখনো আসবে না মর্মে মুচলেকা নেওয়া হয় কাদেরের কাছ থেকে।

মীমাংসার কয়েকদিন পর গত সোমবার রাতে আবারো কাদের শাহিনের ঘরে আসলে আবু ভাণ্ডারী প্রতিবাদ করেন। এ সময় স্ত্রী শাহিন আকতার ও ছেলে খাইরুল এনাম তাকে দড়ি দিয়ে বেঁধে বেধড়ক মারধর করে।

এদিকে মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) এ ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে সাতকানিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আবু ভাণ্ডারীকে উদ্ধার করে। স্ত্রী শাহিন আকতার ও ছেলে খাইরুল এনামকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। পরে স্থানীয়রা আবু ভাণ্ডারীকে দোহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

আবু ভাণ্ডারী আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আমার স্ত্রীর সঙ্গে প্রতিবেশী কাদেরের পরকীয়ার বিষয়টি জানলে আমি বাধা দেই। কিন্তু তারা আমার কথা শুনেনি। বিষয়টি নিয়ে গত সোমবার রাতে আবারও তর্ক হলে ছেলে ও স্ত্রী মিলে আমাকে দড়ি দিয়ে বেঁধে মারধর করে।

আরও পড়ুন: ‘পুলিশ খুন’ করে মাজারের ‘ফকির সেজেই’ পালিয়ে ছিল খুনি

কালিয়াইশ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার মো. মহিউদ্দিন বলেন, বিষয়টি প্রায় ২০ দিন আগে আমরা মীমাংসা করে কাদেরের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়েছিলাম। কাদেরের চরিত্র ভালো না হওয়ায় সন্তান ফেলে তার স্ত্রী ঘর ছেড়ে চলে গেছে।

সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাকারিয়া রহমান জিকু আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, মারধরের শিকার আবু ভাণ্ডারী তাঁর স্ত্রীকে সন্দেহ করতেন। সে ঘটনায় গত সোমবার রাতে স্বামীকে দড়ি দিয়ে বেঁধে মারধর করে স্ত্রী ও সন্তান। নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে বিষয়টি আমাদের নজরে আসে। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে তাঁকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং স্ত্রী ও ছেলেকে পুলিশ হেফাজতে আনা হয়েছে।

দিদার/ডিসি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm