‘নাতনি’ হেলেনার আটকে ক্ষুব্ধ সেফুদা!

বিতর্কিত নারীনেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে ‘নাতনি’ ডাকেন অস্ট্রিয়া প্রবাসী বিতর্কিত ব্যক্তিত্ব সেফুদা। র‌্যাবের হাতে হেলেনার আটকে তাই ক্ষুব্ধ তিনি। অবিলম্বে চান পছন্দের মানুষটির মুক্তি।

শুক্রবার (৩০ জুলাই) এক ভিডিও বার্তায় মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত ব্যক্তিত্ব সেফুদা এ দাবি জানান। আর সেই দাবি তিনি জানিয়েছেন যথারীতি অশ্লীল কিছু গালি দিয়েই।

এদিকে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ানও (র‌্যাব) বলছে, সম্প্রতি আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্য পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া হেলেনার সঙ্গে সম্পর্ক ছিল সেফুদার। ছিল আর্থিক লেনদেনও।

রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‌্যাব সদরদপ্তরে শুক্রবার (৩০ জুলাই) বিকেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ তথ্য জানান।

জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্যের মাধ্যমে দেশবাসীর নজর কাড়তে চেষ্টা করেন সেফুদা। দীর্ঘদিন ধরে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে অশালীন ভিডিও বার্তা প্রকাশ করে আসছেন এই প্রবাসী বাঙালি।

আরও পড়ুন: ঘরভর্তি মাদক-অবৈধ সরঞ্জাম : আটক সেই হেলেনা জাহাঙ্গীর

অন্যদিকে জয়যাত্রা টেলিভিশনের কর্ণধার হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপকমিটির সদস্য ছিলেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারিত তাঁর সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড সংগঠনের নীতিবহির্ভূত হওয়ায় আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্যপদ থেকে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

চাঁদাবাজিসহ নানা অভিযোগ রয়েছে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে। আলোচনায় এসেছেন মিউজিক ভিডিওতে গান গাওয়ার পাশাপাশি মডেল হয়েও। সম্প্রতি ফেসবুকে বাংলাদেশ আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ নামের একটি সংগঠনের সভাপতি হিসেবে হেলেনা জাহাঙ্গীরের নাম আলোচনায় আসে। তবে সব বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাতে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাঁকে আটক করে র‍্যাব।

এসময় তাঁর বাসা থেকে বিদেশি মদ, অবৈধ ওয়াকিটকি সেট, চাকু, বৈদেশিক মুদ্রা, ক্যাসিনো সরঞ্জাম ও হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়। আটকের পর তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

হেলেনার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা হবে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm