চাতরী চৌমুহনী—মুহূর্তেই দূর দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ

গণশৌচাগারের ময়লা-আবর্জনার দুর্গন্ধযুক্ত পানিতে ভরপুর ছিল আনোয়ারার চাতরী চৌমুহনী বাজার। দুর্গন্ধে হাঁটাচলা দায় হয়ে পড়েছিল ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের। খবর পেয়ে দুর্ভোগ লাগবে এগিয়ে এলেন খোদ ইউএনও এবং মেয়র।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) বিকালে সরেজমিন ঘটনাস্থলে আসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ জোবায়ের আহমেদ ও চাতরী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন চৌধুরী সোহেল।

আরও পড়ুন: খাল ও ভাগাড়ের ময়লা রাস্তায়—বাড়ছে দুর্ভোগ

স্থানীয়রা জানান, বাজার ও রাস্তায় শৌচাগারের ময়লা পানি মাড়িয়ে চলাচল করতে হয়। দিন-রাত মশার উপদ্রব তো আছেই। বাজার পরিচালনা কমিটি ও ইজারাদার সমস্যা সমাধানে কারো কোনো পদক্ষেপ নেই। দিন দিন দুর্ভোগ বাড়ছিল।

জানতে চাইলে চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন চৌধুরী সোহেল আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ড্রেনে ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে রাস্তায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ড্রেনে ময়লা-আবর্জনা না ফেলতে ব্যবসায়ীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আজ (শুক্রবার) ড্রেন পরিস্কার ও সংস্কারের কাজ শুরু করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: কর্ণফুলী—আনোয়ারা সড়ক : উন্নয়নের উৎসবে ধুলোর যন্ত্রণা

এ বিষয়ে আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ জোবায়ের আহমেদ বলেন, গণশৌচাগার যারা ইজারা নিয়েছেন তারা প্রতিমাসে ৩ হাজার টাকা করে দেন উপজেলা প্রশাসনকে। টাকাগুলো দিয়ে গণশৌচাগারের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ও ড্রেন সংস্কারের কাজ করা হয়। ড্রেনে ময়লা-আবর্জনা ফেলায় পানি নিষ্কাশন বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে সমস্যার সমাধান করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ব্যবসায়ীরা যদি আন্তরিক না হন, তাহলে বাজারের জলাবদ্ধতা দূর করা সম্ভব নয়।

ইমরান/আরবি

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm