তরুণীর মৃত্যু ‘হত্যা—আত্মহত্যার’ রহস্যে দুলছে, তদন্তের মাঠে পুলিশ

লোহাগাড়ায় ফাতেমা বেগম (২২) নামে এক তরুণী বধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

২১ আগস্ট (শনিবার) সকালে সদর ইউনিয়নের সুখছড়িরকুল থেকে ফাতেমার লাশ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। এ সময় তাঁর স্বামী মো. শরিফকে (৩০) আটক করা হয়।

জানা যায়, তিন বছর আগে লোহাগাড়ার চুনতি ইউনিয়ন সাতগড় গ্রামের মো. ইসমাঈলের মেয়ে ফাতেমা বেগমের সঙ্গে সুখছড়িরকুল মোস্তাক আহম্মদের ছেলে মো. শরীফ হোসেনের বিয়ে হয়। তাদের সংসার খুব সুন্দর চলেছিল। এক সময় জীবিকার তাগিদে ওমানে পাড়ি জমান শরীফ হোসেন। এরপর ছুটিতে দেশের বাড়িতে আসেন। কিন্তু লকডাউনের কারণে আর ওমান যেতে পারেননি তিনি।

আরও পড়ুন: হত্যা না আত্মহত্যা—ওড়নায় ঝুলেছিল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর লাশ

স্ত্রীর সঙ্গে কোনো ঝগড়া হয়নি দাবি করে শরীফ জানান, শুক্রবার (২০ আগস্ট) রাতে ফাতেমা শারীরিক অসুস্থতার কথা জানিয়ে সকালে ডাক্তারের কাছে নিতে বলে। এরপর সে ঘুমিয়ে পড়ে। সকালে ডাকতে থাকলেও সে আর ঘুম থেকে উঠেনি। তখন বাড়ির লোকজনকে খবর দিলে তারা এসে ফাতেমাকে মৃত বলে জানান।

এদিকে নিহত ফাতেমার মা আরেফা বেগম বলেন, আমার মেয়েকে তার স্বামী মেরে ফেলেছে। আমি এর বিচাই চাই।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন লোহাগাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকের হোসাইন মাহমুদ, থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মু. ওবায়দুল ইসলাম, এসআই মোজাম্মেল হক ও ইউপি সদস্য এনামুল হক বাবুল সওদাগর।

আরও পড়ুন: ‘চাকরির টোপে’ যৌনব্যবসা—৯৯৯ ফোনে উদ্ধার হলো তিন তরুণী

ওসি জাকের হোসাইন মাহমুদ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, লাশের গলার নিচে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধুর স্বামী শরীফকে আটক করা হয়েছে। গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এটা হত্যা, নাকি আত্মহত্যা পোস্টমটেম রিপোর্ট পেলে জানা যাবে।

সাত্তার

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm