‘বাংলাদেশি’ সেজে চট্টগ্রামে বাসায় বসে ইয়াবার বড় বাণিজ্যে রোহিঙ্গা

রোহিঙ্গা নাগরিক মো. ইসলাম। তিনি দীর্ঘদিন ধরে টেকনাফ রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে পরিবারের সঙ্গে থাকতেন। পরে তিনি ভুয়া জন্মসনদ তৈরি করে বাংলাদেশি নাগরিক পরিচয়ে নগরের চান্দগাঁও থানার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের চুনারটাল এলাকায় বাসা ভাড়া নেন। সেখানে ধার্মিক মুসলমান সেজে একটি জুতার কারখানায় কাজ নেন। এরপর কাজের আড়ালে শুরু করেন ইয়াবার ব্যবসা।

শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) রাতে গোপন সংবাদে নগরের চান্দগাঁও থানার চুনারটাল এলাকার একটি ভবনের তৃতীয় তলার বাসা থেকে ৩ কোটি টাকা মূল্যের ৯৭ হাজার ইয়াবাসহ তাকে আটক করে র‌্যাব-৭।

আরও পড়ুন: উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রাতের অভিযানে ৫ ডাকাত আটক

শনিবার (১৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার।

আটক নুর হোসেন (২১) টেকনাফ থানার মুছুনী আই ব্লক এমআরসি-৬১২৫৪ ক্যাম্পের বাসিন্দা মো. ইসলামের ছেলে।

আরও পড়ুন: ৩ কোটি টাকার ইয়াবা রাখা রোহিঙ্গা যুবককে ১০ বছর জেলে থাকতে হবে

বিষয়টি নিশ্চিত করে র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার আলোকিত চট্টগ্রামকে জানান, চান্দগাঁও থানার চুনারটাল এলাকার একটি বাসায় বিপুল পরিমাণ ইয়াবা মজুদ করা হয়েছে-এমন সংবাদে অভিযান চালিয়ে ৯৭ হাজার ইয়াবাসহ এক রোহিঙ্গা নাগরিককে আটক করা হয়েছে। উদ্ধার করা ইয়াবার আনুমানিক মূল্য ৩ কোটি টাকা। আইনানুগ প্রক্রিয়া শেষে তাকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আটক ব্যক্তি ভুয়া জন্মসনদ তৈরি করে বাংলাদেশি নাগরিক পরিচয়ে চান্দগাঁও এলাকায় বাসা ভাড়া নেন। সেখানে ধার্মিক মুসলমান সেজে একটি জুতার কারখানায় কাজ নেন। এরপর কাজের আড়ালে শুরু করেন ইয়াবার ব্যবসা। কক্সবাজার থেকে পাইকারি দামে ইয়াবা ক্রয় করে বাসায় মজুদ করতেন। পরে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পাচার করতেন।

এএইচ/আরবি

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm