টিসিবির পণ্য—গাড়ি চলে না, চলে না

নগরের ১৬ নম্বর চকবাজার ওয়ার্ডের পুরাতন কাউন্সিলর অফিসের সামনে মানুষের জটলা। সবাই প্রতীক্ষায় টিসিবির পণ্য নিতে। টিসিবির পণ্য নিয়ে বেলা ১২টায় আসার কথা ছিল গাড়ি। কিন্তু ঘড়ির কাঁটা ৩টা পেরিয়ে গেলেও গাড়ির দেখা নেই!

তীব্র রোদে প্রতীক্ষায় থাকা গ্রাহকরা বারবার জানতে চাইছে ‘কখন আসবে গাড়ি‘। আর সেখানে থাকা দায়িত্বরদের উত্তর একটাই—আসছে, যানজটের কারণে গাড়ি আসতে দেরি হচ্ছে। টিসিবির গাড়ির পরিস্থিতি ঠিক যেন গানের মতো— গাড়ি চলে না, চলে না….।

সাশ্রয়ী মূল্যের ফ্যামিলি কার্ড নিয়ে টিসিবির পণ্য কিনতে পুরাতন কাউন্সিলর কার্যালয়ের নিচে দাঁড়িয়েছিলেন চকবাজারের বাসিন্দা সুজিত দাশ। সকাল ১১টায় তিনি লাইনে দাঁড়ান। শুধু সুজিত দাশ নয়, রেশমা, ইসমাইল, জনিসহ নাম না জানা আরও অনেকেই এসে দাঁড়িয়েছেন সারিবদ্ধভাবে। তবে পুরুষদের চেয়ে লাইনে মহিলাদের সংখ্যা ছিল তুলনামূলক বেশি।

আরও পড়ুন: হাতে হাতে টিসিবির তেল চিনি ডাল—মুখে তৃপ্তির হাসি

সুজিত দাশ বলেন, সকাল ১১টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। একমুহূর্তের জন্যও কোথাও যাইনি। বর্তমান বাজারে টিসিবির পণ্য আমাদের জন্য স্বস্তির। কিন্তু ঘণ্টার পর ঘণ্টা এভাবে দাঁড় করিয়ে রাখা আমাদের জন্য অনেক কষ্টের। কারণ আমার হার্টের সমস্যা আছে। একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ট্রাক আসলে সবার সুবিধা হয়।

টিসিবি

গৃহিণী রেশমা বলেন, রোজা রেখে সংসারের কাজ ফেলে বেলা ১২টায় এসে লাইনে দাঁড়ালাম। ১টা-২টায় গাড়ির দেখা নাই। শেষ পর্যন্ত সাড়ে তিনটার দিকে গাড়ি আসে। এর আগে শুধু শুনেছি গাড়ি আসছে। টাকা দিয়ে পণ্য কিনব সেখানেও যদি এত ভোগান্তি পোহাতে হয়। গরিবের দুঃখ দেখার কেউ নেই।

সরেজমিন দেখা যায়, চারটার পর টিসিবির পণ্য ব্যাগে নিয়ে বাড়ির দিকে যাত্রা শুরু করেন সুজিত দাশ।। চার ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েও শেষপর্যন্ত পণ্য পেয়ে কিছুটা স্বস্তি দেখা গেল তাঁর চোখে–মুখে।

সুজিত দাশের মতো শতাধিক মানুষ পণ্য পেতে সেখানে অপেক্ষা করছিলেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা। তবে তাদের অভিযোগ শোনার জন্য সেখানে কেউ ছিল না। প্রতিবাদ করলেও বারবার দায়িত্বপ্রাপ্তরা শুনিয়েছেন গাড়ি আসার সান্ত্বনার বাণী।

বিষয়টি আলোকিত চট্টগ্রামের পক্ষ থেকে তৎক্ষণাৎ সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্তকে মুঠোফোনে জানানো হলে তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলে জানান।

এ বিষয়ে কাছে জানতে চাইলে এক বিক্রয় প্রতিনিধি বলেন, টিসিবির গুদাম থেকে পণ্য ট্রাকে লোড করে যানজটের কারণে আসতে দেরি হয়ে যায়।

আরও পড়ুন: টিসিবির পণ্য—রহিমা অপর্ণা আঞ্জুমানরা শোনালেন কষ্টের গল্প

সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা ওয়ার্ড সচিব তারেক সুলতান সেলিমের কাছে পণ্য দেরিতে আসার কারণ জানতে চাইলে তিনিও বিক্রয় প্রতিনিধিদের সুরে কথা বলেন।

যোগাযোগ করা হলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর নূর মোস্তফা টিনু বলেন, করপোরেশন থেকে যতক্ষণে পণ্য দেওয়া হয়েছে ততক্ষণে গাড়ি আসছে। এখানে আমার করার কিছু নেই। ওখান থেকে যখনই পাঠাবে আমরা সঙ্গে সঙ্গে বিতরণ শুরু করি। রমজানের কারণে পণ্য লোড-আনলোডে শ্রমিক সংকট ছিল। আমরা প্রতিদিন ১২টা থেকেই পণ্য বিক্রি শুরু করি।

এসব বিষয়ে জানতে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) মো. শহীদুল আলমের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

আরবি

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm