‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবন—৩ বছরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ শ্রমিকের মৃত্যু

হাটহাজারীর একটি ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবনের ছাদে কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক নির্মাণশ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। তিন বছর আগে একই ভবনে কাজ করার সময় আরও এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছিল।

মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) দুপুর ১টায় ৮ নম্বর মেখল ইউনিয়নের ২ নম্বর রহিমপুর ওয়ার্ডে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত নির্মাণশ্রমিকের নাম সাগর (২০)। তিনি হাটহাজারী উপজেলার দক্ষিণ দেওয়াননগর মৌলভীপাড়া এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভবনটির দ্বিতীয় তলার ছাদের মাত্র পাঁচ থেকে ছয় ফুট উপরে রয়েছে ৩৩ হাজার ভোল্টের একটি বৈদ্যুতিক লাইন। সেখানে নির্মাণকাজ করার সময় বিদু্ৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যান সাগর।

সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, শফিউল আজমের দ্বিতল ভবনের উপরে রয়েছে ৩৩ হাজার ভোল্টের বৈদ্যুতিক লাইন। ছাদ থেকে দূরত্ব মাত্র পাঁচ থেকে ছয় ফুট। অসাবধানতাবশত ঘটতে পারে প্রাণহানির মতো দুর্ঘটনা। ঝুঁকিপূর্ণ জেনেও ভবন মালিক নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

স্থানীয়রা জানান, তিন বছর আগে একই ভবনে কাজ করার সময় আরও এক শ্রমিক নিহত হন। বিষয়টি ধামাচাপা দিয়ে নির্মাণকাজ চালিয়ে যান তিনি। গত মঙ্গলবার ভবনটির দ্বিতীয় তলায় প্লাস্টারের কাজ করার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন সাগর। এসময় তার শরীরের বেশিরভাগ অংশ ঝলসে যায়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনার বিষয়ে হাটহাজারী মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, একটি ভবনে কাজ করার সময় বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে একজন নির্মাণশ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। ভবনটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। কারণ ভবনটির ছাদের মাত্র দুই হাত উপরে ৩৩ হাজার ভোল্টের একটি বৈদ্যুতিক সংযোগ লাইন গেছে।

সিএম/আরবি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm