জিল্লু ভাণ্ডারী খুন—৮ মামলা কাঁধে নিয়ে সাত বছর পালিয়ে ছিল সন্ত্রাসী কামাল

রাঙ্গুনিয়ার আলোচিত ও চাঞ্চল্যকর জিল্লু ভান্ডারী হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক ও শীর্ষ সন্ত্রাসী মো. কামালকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। বুধবার (৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় খাগড়াছড়ি থানার কলেজপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেন র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার। গ্রেপ্তার মো. কামাল (৩২) রাঙ্গুনিয়া থানার গোদারপাড়া এলাকার আজিম ওরফে আজম্যা ওরফে আমিনুল হকের ছেলে।

র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২১ জানুয়ারি রাঙ্গুনিয়া রানীরহাট প্রাথমিক বিদ্যালয় গেইটের সামনে জিল্লু ভান্ডারীকে গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। ঘটনার পর নিহতের ছোট ভাই মো. আজিম উদ্দিন বাদী হয়ে ৮ জনকে আসামি ও ৪-৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে রাঙ্গুনিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি ২৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যপ্রমাণে আদালত অভিযুক্ত দুই আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও ৬ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।

আরও পড়ুন: রাতের অভিযানে নগরের ৩ স্পট থেকে গ্রেপ্তার ৭ ডাকাত

র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার বলেন, রাঙ্গুনিয়ার চাঞ্চল্যকর জিল্লু ভান্ডারী হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ও শীর্ষ সন্ত্রাসী মো. কামালকে খাগড়াছড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন জায়গায় স্থান পরিবর্তন করে আত্মগোপনে ছিল।

তিনি আরও বলেন, তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। রাঙ্গুনিয়া থানায় ৬টি, নগরের কোতোয়ালী থানায় ১টি, খাগড়াছড়ি সদর থানায় ১টি মামলাসহ মোট ৮টি মামলা রয়েছে। আইনানুগ প্রক্রিয়া শেষে তাকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

এএইচ/এসআই

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm