‘ছাড়’—১১ আগস্ট থেকে ‘বিধিনিষেধ’ থাকবে যেভাবে

আগামী ১১ আগস্ট থেকে দেশে চলমান বিধিনিষেধে কিছু পরিবর্তন আসছে। ওইদিন থেকে অফিস, গণপরিবহন ও মার্কেট খুলবে, তবে সীমিত পরিসরে। এছাড়া আগের ঘোষণা অনুযায়ী, ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বন্ধ থাকবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

এর আগ পর্যন্ত, অর্থাৎ ১০ আগস্ট পর্যন্ত চলবে চলমান ‘কঠোর বিধিনিষেধ’।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) করোনাভাইরাসের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভা শেষে এসব তথ্য জানান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

দোকানপাট-গণপরিবহন খুলছে ১১ আগস্ট

দোকানপাট, মার্কেট ও গণপরিবহন আগামী ১১ আগস্ট থেকে সীমিত পরিসরে খোলা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, আগামী ১১ তারিখ থেকে দোকানপাট খোলা হবে। তবে একজন কর্মচারীও ভ্যাকসিন ছাড়া কর্মস্থলে আসতে পারবেন না।

আরও পড়ুন: ঘোষণা : আবার বেড়েছে বিধিনিষেধ

সীমিতসংখ্যক যানবাহন ও রেল আগামী ১১ আগস্ট থেকে পর্যায়ক্রমে চলবে বলেও জানান তিনি। মন্ত্রী বলেন, ওই দিন থেকে যথারীতি অফিসও চলবে। তবে পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে রপ্তানিমুখী শিল্প-কারখানাগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে। অন্যান্য শিল্প-কারখানা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ১১ আগস্ট থেকে পর্যায়ক্রমে সীমিতসংখ্যক যানবাহন ও রেল চলবে।

মাস্ক না পরলে জরিমানার ক্ষমতা পেতে পারে পুলিশ

চলমান করোনা পরিস্থিতিতে কেউ মাস্ক না পরে ঘরের বাইরে বের হলে তাকে জরিমানা করার ক্ষমতা পুলিশকে দেওয়ার কথা ভাবছে সরকার।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, সবাইকে মাস্ক পরতে হবে, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এটাকে সঠিকভাবে এনফোর্স করতে পুলিশকে ক্ষমতা দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। যাতে যারা মাস্ক পরবে না তাদের জরিমানা করতে পারে। এজন্য অধ্যাদেশ লাগবে। আলোচনা হয়েছে, আমরা সেদিকেও যাব।

টিকা না নিয়ে ঘুরলে ‘শাস্তি’

আগামী ১১ আগস্ট থেকে ১৮ বছরের বেশি বয়সী কেউ করোনার টিকা না নিয়ে বাইরে ঘোরাফেরা করলে তাকে শাস্তির আওতায় আনার বিষয়টিও বিবেচনায় আছে সরকারের।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, রাস্তাঘাটে, বাসে কিংবা ট্রেনে কেউ আইন না মানলে সরকার হয়ত অধ্যাদেশ জারি করে শাস্তি দিতে পারে।

আরও পড়ুন: চট্টগ্রামে নমুনার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে শনাক্ত, মৃত্যুও ছুটছেই

প্রসঙ্গত, করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় গত ২৩ জুলাই থেকে দেশে ‘কঠোর বিধিনিষেধ’ চলছে, যা ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। এবার সরকারের পক্ষ থেকে ‘কঠোরতম’ বিধিনিষেধের কথা বলা হলেও শেষ পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের দাবির মুখে সেটা আর তেমন থাকেনি। ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী সব শিল্প ও কলকারখানা চলমান বিধিনিষেধের আওতাবহির্ভূত করা হয়েছে। এছাড়া শনিবার নির্দিষ্ট সময়ের জন্য গণপরিবহন এবং লঞ্চ চলাচলেরও অনুমতি দেওয়া হয়। অবশ্য পরে তা বন্ধও করে দেওয়া হয়।

জেডএইচ
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm