চট্টগ্রামে ছাত্রীকে অচেতন করে ধর্ষণ—সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক গ্রেপ্তার

প্রাইভেট পড়ানোর নামে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ফয়েজুল ইসলাম (৪৬) নামে এক শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নগরের বায়েজিদ বোস্তামি থানার শেরশাহ এলাকার হাজী মহজুমদার ভিলার নিজ বাসা থেকে রোববার (৯ জুন) রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ফয়েজুল ইসলাম শেরশাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। তিনি বাঁশখালীর পূর্ব চাম্বল সোনারখিল এলাকার হামিদ আলীর ছেলে।

আরও পড়ুন : বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে ধর্ষণ, সন্তান জন্মের পর অস্বীকার

বিষয়টি নিশ্চিত করে বায়েজিদ বোস্তামি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সঞ্জয় কুমার সিনহা আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, ভুক্তভোগী শিশুর মায়ের অভিযোগে ফয়েজুলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ভুক্তভোগী শিশুর মা একজন পোশাক শ্রমিক। শিশুটি সপ্তাহে ছয়দিন ফয়েজুলের কাছে প্রাইভেট পড়ে। তবে শনিবার প্রাইভেট ক্লাস থাকে না। শিশুর মা নিজের কর্মস্থলে চলে যাওয়ার পর অন্য এক মেয়ের মাধ্যমে ভুক্তভোগী শিশুকে প্রাইভেট পড়তে ডেকে নিয়ে যান ফয়েজুল। বাসায় যাওয়ার পর তাকে গ্লাসে রাখা পানি পান করতে বলেন শিক্ষক। সেই পানি খাওয়ার পর ওই শিশু অচেতন হয়ে পড়ে। এরপর তাকে ধর্ষণ করেন শিক্ষক ফয়েজুল।

শনিবার রাতে ভুক্তভোগীর মা কর্মস্থল থেকে বাসায় ফেরার পর মেয়ের মুখ থেকে এসব বিষয় জানতে পেরে থানায় অভিযোগ করেন। এরপর অভিযুক্ত শিক্ষক ফয়েজুলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

আরএস/আরবি

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!