চট্টগ্রামে করোনা : ‘মৃত্যু’ যেন পাগলা ঘোড়া

চট্টগ্রামে কোনোভাবেই করোনা রোগীর মৃত্যুর লাগাম টানা যাচ্ছে না। প্রতিদিনই ঘটছে একের পর এক করোনা রোগীর মৃত্যু। পরিস্থিতি এমন— করোনায় ‘মৃত্যু’ যেন পাগলা ঘোড়া।

গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে আরও ৪ করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এর আগের দিনও করোনা কেড়ে নেয় ৪ প্রাণ। তারও আগের দিন মারা যান ৫ করোনা রোগী।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত কমেছে। ১ হাজার ৫০৯ নমুনা পরীক্ষায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৩৩ জন। শনাক্তের হার ৮.৮২ শতাংশ।

এর আগের দিন চট্টগ্রামে ১৯৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ছিল ১২.৬২ শতাংশ।

আরও পড়ুন: চট্টগ্রামের ৮৫ স্পটে করোনার ছোবলে যত মৃত্যু—আক্রান্ত

১৩৩ জন আক্রান্তের মধ্যে ৮৭ জন নগরের এবং ৪৬ জন উপজেলার। সবমিলিয়ে চট্টগ্রামে শনাক্ত ১ লাখ ৪৫২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের ২ জন নগরের এবং ২ জন উপজেলার বাসিন্দা। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ১ হাজার ২৫৯ জন।

বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।
গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৮৬ নমনুায় ১৫ জন, ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি ল্যাবে ৪৮০ নমুনায় ৫১ জন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ইউনিভার্সিটি ল্যাবে ১৪৬ নমুনায় ২৯ জন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ২১৩ নমুনায় ২২ জন, ইমপেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৪৯ নমুনায় ৫ জন এবং শেভরন হাসপাতাল ল্যাবে ৩৭৫ নমুনায় ৫ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়।

একই সময়ে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২৬ নমুনায় ২ জন, মেডিকেল সেন্টার হাসপাতাল ল্যাবে ১৮ নমুনায় ৪ জন, ল্যাব এইডে ২ জন এবং এপিক হেলথ কেয়ার ল্যাবে ৭৭ নমুনায় ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

এদিন অ্যান্টিজেন টেস্টে ২৫ জন এবং কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ৩ জনের পরীক্ষায় কারো শরীরে করোনার উপস্থিতি মেলেনি।

এদিকে চট্টগ্রামের ৫ উপজেলায় নতুন কোনো করোনা রোগী পাওয়া যায়নি। উপজেলাগুলো হলো- আনোয়ারা, বাঁশখালী, লোহাগাড়া, মিরসরাই ও সাতকানিয়া।

এছাড়া হাটহাজারীতে ১৬ জন, রাউজানে ৯ জন, ফটিকছড়িতে ৫ জন, রাঙ্গুনিয়ায় ৫ জন, বোয়ালখালীতে ৪ জন, সীতাকুণ্ডে ৩ জন, চন্দনাইশে ২ জন, পটিয়ায় ১ জন এবং সন্দ্বীপে ১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

আলোকিত চট্টগ্রাম
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm