খালেদার ৭ বছরের জেল, গরম খুন্তি দিয়ে গৃহকর্মীকে ঝলসে মামলায়

বাসার কাজে সামান্য ভুলে গৃহকর্ত্রী খালেদা আক্তারের (৬০) মেজাজ যেতো বিগড়ে । রুটি বানাতে দেরি হওয়ায় গরম খুন্তি দিয়ে গৃহকর্মীর হাত পুড়ে দেন তিনি। মারধর ছিল তার নিত্যদিনের অভ্যাস।

২০১২ সালের ১৩ এপ্রিল ঘর মুছা নিয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে গৃহকর্মীকে বেধড়ক মারধর করেন গৃহকর্ত্রী খালেদা। পরে খবর পেয়ে পাঁচলাইশ থানা পুলিশ সেই গৃহকর্মীকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। এই ঘটনার পর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়। সেই মামলায় গৃহকর্ত্রী খালেদা আক্তারকে সাত বছর সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (৮ আগস্ট) দুপুরে চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক বেগম ফেরদৌস আরা এ রায় দেন। আসামি খালেদা আক্তার নাছিরাবাদ হাউজিং সোসাইটির ২ নম্বর রোডের ২৭ নম্বর বাসা ইলিজি আর্চাদ ভবনের সি-৫ ফ্ল্যাটের মৃত মোহাম্মদ ফারুকের স্ত্রী।

আরও পড়ুন: জীবনটা জেলেই কাটিয়ে দিতে হবে ওসি প্রদীপ—চুমকিকে

বিষয়টি নিশ্চিত করে ট্রাইব্যুনাল পিপি খন্দকার আরিফুল আলম বলেন, প্রাথমিকভাবে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় খালেদা আক্তারকে সাত বছর সশ্রম কারাদণ্ড, ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড এবং অনাদায়ে ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

Yakub Group

তিনি আরও বলেন, মামলা দায়েরের একই বছরের ২০ জুন তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে ৯ জন সাক্ষীর মধ্যে ডাক্তার ও তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ মোট পাঁচজন সাক্ষ্য দেন। সাক্ষ্য চলাকালীন সময় এবং পরবর্তী আদালতে হাজির থাকতেন মামলার আসামি খালেদা আক্তার। কিন্তু আজ (সোমবার) রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। তার অনুপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করেন আদালত।

প্রসঙ্গত, ভুক্তভোগী গৃহকর্মীর বাড়ি লক্ষ্মীপুরে। তিনি ৬ বছর ধরে ডাক্তার মোহাম্মদ ফারুকের বাসায় দেড় হাজার টাকা বেতনে কাজ করতেন। ডাক্তার ফারুকের স্ত্রী খালেদা বেগম বেশিরভাগ সময় তার উপর শারীরিক নির্যাতন করতেন। ২০১২ সালের ১১ এপ্রিল সকাল ৮ টায় রুটি বানাতে দেরি হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে গরম খুন্তি দিয়ে গৃহকর্মীর হাত পুড়ে দেওয়াসহ মারধর করেন। এই ঘটনার দুদিন পর (১৩ এপ্রিল) দুপুরে ঘর মুছার ঘটনার জের ধরে জানালার পর্দার স্ট্যান্ড দিয়ে তাকে বেধড়ক মারধর করেন খালেদা বেগম। এতে গৃহকর্মীর ডান হাত, পা ও শরীরের বিভিন্ন অংশে মারাত্মক জখম হয়। এসময় চিৎকার করলে তাকে গলা চেপে ধরেন খালেদা। পরে পাশের ফ্ল্যাটের লোকজন থানা খবর দিলে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে।

আরএস/এসআর

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm